Press "Enter" to skip to content

নেহেরুর কারণে চীনের সেনা আমাদের এলাকা দখল করতে থাকল, আর আমরা পিছিয়ে যেতে থাকলাম

লাদাখের জনপ্রিয় বিজেপি সাংসদ জাময়েন সেরিং নামগয়াল () এর ৩৭০ ধারা তুলে দেওয়ার পর সংসদে জোরদার ভাষণের কারণে উনি গোটা দেশে বিখ্যাত হয়ে যান। আর যেমন ভাবে তিনি আবদুল্লাহ আর মুফতি পরিবারকে আক্রমণ করে লাদাখের জনতার রায় সবার সামনে আনেন, সেটা দেখে ওনার খুব প্রশংসা হয়। এই ভাষণের পর লাদাখে গেলে ওনাকে ঘিরে অনেক উন্মাদনা দেখা যায়। স্বাধীনতা দিবসে জাময়েন সেরিং নামগয়াল নিজের সংসদীয় এলাকায় তেরঙ্গা হাতে নিয়ে নাচেন। এবার জাময়েন সেরিং নামগয়াল কংগ্রেসের সরকারের উপর প্রতিরক্ষা নীতি নিয়ে লাদাখকে নজর আন্দাজ করার অভিযোগ তুলেছেন।

জাময়েন সেরিং নামগয়াল বলেন, কংগ্রেসের ভুলভাল নীতির কারণে চীন ডেমচৌক সেক্টর এলাকা কবজা করে  নিয়েছে। উনি কংগ্রেসের উপর অভিযোগ এনে বলেন, কংগ্রেস সরকার উত্তেজনার পরিস্থিতিতেও তোষণ নীতিকে প্রাধান্য দিয়ে গেছে। আর তাঁদের এই নীতির কারণে শুধু কাশ্মীর না, লাদাখেরও প্রচুর ক্ষতি হয়েছে।

ভারত আর চীনের সীমান্ত নিয়ে অনেক বছর ধরেই বিবাদ চলছে। আর চীনের এই বিস্তারবাদী নীতির কারণে চীনের অনেক প্রতিবেশী দেশের সাথে সম্পর্ক খারাপ হয়েছে। চীন কাশ্মীরের এক বড় অংশে কবজা করে রেখেছে। যেটিকে আকসাই চীন নামে জানা যায়। এছাড়াও Shaksgam ঘাঁটির একটি বড় অংশে চীন কবজা করে রেখেছে। লাদাখের বিজেপি সাংসদ জাময়েন সেরিং নামগয়াল বলেন, কংগ্রেস পাথরবাজদের সবসময় খুশ করে রেখেছিল। আর বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সংরক্ষণ এই কংগ্রেসেই দিয়েছিল।

লাদাখের বিজেপি সাংসদ জাময়েন সেরিং নামগয়াল বলেন, ‘প্রাক্তন এবং ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহর লাল নেহেরু ‘ফরওয়ার্ড নীতি” আপন করেছিলেন, যেখানে বলা হয়েছিল, আমরা এক এক ইঞ্চি করে চীনের দিকে অগ্রসর হব। কিন্তু ওনার নীতি উনি নিজেই পালন না করে, ফরওয়ার্ড নীতিকে ব্যাকওয়ার্ড নীতি বানিয়েছিলেন। আর এই কারণে চীনের সেনার লাগাতার আমাদের এলাকায় ঢুকতে থাকল, আর আমরা পিছিয়ে যেতে থাকলাম। আর এই কারণে এখন আকসাই চীন সম্পূর্ণ ভাবে চীনের হাতের মুঠোয় চলে গেছে। পিপলস লিবারেশন আর্মির জওয়ানেরা ডেমচৌক নালা পর্যন্ত পৌঁছে গেছে, কারণ কংগ্রেসের ৫৫ বছরের শাসনে সুরক্ষা নীতির দিকে ধ্যানই দেওয়া হয়নি।”