Press "Enter" to skip to content

২০১৯ এর আগে জোর ধাক্কা খেল কংগ্রেস! অমিত শাহের কূটনীতিতে বিজেপিতে সামিল কংগ্রেসের বড়ো নেতা।

এই সময় দেশের সমস্থ পার্টির নজর ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনের উপর রয়েছে। লোকসভা নির্বাচনকে মাথায় রেখে প্রত্যেক পার্টি নিজের নিজের প্রস্তুতিতে লেগে পড়েছে। একদিকে কংগ্রেস বিজেপির বিজয় রথ আটকানোর জন্য জোটবন্ধনের সাহায্য নিচ্ছে, অন্যদিকে বিজেপি !
নিজেদের লক্ষ স্থির রেখে ২০১৯ এ পুনরায় জেতার দিকে এগিয়ে চলেছে। এমন পরিস্থিতিতে রাজনীতির অন্দর মহল থেকে একটা বড়ো খবর সামনে আসছে যা পুরো কংগ্রেসকে কাঁপিয়ে তুলেছে। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, কংগ্রেসের এক দাপুটে নেতা ইস্তফা পত্র দিয়ে বিজেপির দিকে হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। কংগ্রেসের এই নেতা একা বিজেপি যোগদান করেননি, বরং উনার সাথে উনার বেশকিছু সমর্থকরা বিজেপিতে সামিল হতে এগিয়ে এসেছেন।

প্রাক্তন কংগ্রেসি ও বর্তমানের বিজেপি এই নেতার নাম জিভা ভাই প্যাটেল। ইনি ২০০৪-২০০৯ এ গুজরাটের মেহেশানা লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ ছিলেন, এবং কংগ্রেসের একজন বরিষ্ঠ নেতা হিসেবে প্রসিদ্ধ ছিলেন। রাজ্য কংগ্রেসের কোষাধ্যক্ষ জিভা ভাই প্যাটেল বলেছেন, দেশে ও প্রদেশের বিকাশ একমাত্র নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে সম্ভব, বাকি কোনো নেতা এত দক্ষতার সাথে দেশবাসীকে নেতৃত্বে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে না।

জিভা ভাই প্যাটেল গুজরাটের পার্টিদার সম্প্রদায়ের একজন বড়ো নেতা, ইনি কংগ্রেস ত্যাগ করার কংগ্রেস পার্টির মধ্যে ভূমিকম্প এর পরিস্থিতি হয়েছে। পার্টিদার সম্প্রদায় গুজরাটের একটা বড়ো ভোট ব্যাংক হিসেবে কাজ করে কিন্তু এত বড়ো নেতা হাত ছাড়া হওয়ায় কংগ্রেসের অন্দরমহল ২০১৯ এর আগে জবরদস্ত ধাক্কা খেয়েছে। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে জিভা ভাই প্যাটেলের সাথে কংগ্রেসের অনেকদিন ধরে তর্ক বিতর্ক উৎপন্ন হচ্ছিল, অমিত শাহ এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে জিভা ভাই প্যাটেলকে নিজের দলে টেনে নিয়েছেন।

কংগ্রেস পার্টি এমনিতেই গুজরাটে কোণঠাসা হয়ে রয়েছে তার এত বড় ধাক্কা ২০১৯ এর আগে খুব বিপদজনক বলেই দাবি রাজনৈতিক মহলের। তিন রাজ্যে জয় পাবার পর রাহুল গান্ধী দাবি করেছিলেন , এবার বিজেপির পতন শুরু। কিন্তু তিন রাজ্যের হারের পর আরো শক্তিশালী হয়ে উত্থান ঘটছে বিজেপির। হরিয়ানা পৌরসভা, গুজরাট উপনির্বাচন সব ক্ষেত্রেই বিজেপি নিজের দাপদ দেখিয়ে কংগ্রেসকে আছড়ে ফেলছে।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.