Press "Enter" to skip to content

টাকা লুটে পলাতক মেহুল চোকসির সাথে কংগ্রেসের ঘনিষ্ঠতার বড়সড়ো পর্দাফাঁস করলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ।

একদিকে কংগ্রেস নীরব মোদী ও মেহুল চকসি মতো লোকেদের ঋণ দেওয়ার ব্যবস্থা করে দিয়ে দেশকে সমস্যায় ফেলেছে অন্যদিকে মোদী সমস্ত চেষ্টা প্রয়োগ করে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়া ব্যাক্তিদের দেশে ফেরানোর চেষ্টায় লেগে রয়েছে। আর সেইজন্যে সরকার পালিয়ে যাওয়া যাওয়া ব্যাক্তিদের জন্য দেশে আইন পাশ করিয়ে ফেলেছে।সরকারের উদেশ্য ভবিষ্যতে টাকা লুটে পালিয়ে যাওয়া বাক্তিদের তৎকাল ফিরিয়ে অনার ব্যাবস্থা করা। অন্যদিকে রবিশঙ্কর প্রসাদ টাকা নিয়ে পালিয়ে যাওয়া ব্যাক্তিদের নিয়ে বড় তথ্যের ফাঁস করেছেন।

রবিশঙ্কর জানান কিভাবে কংগ্রেস ভুলভালভাবে ব্যাঙ্ক থেকে টাকা পাইয়েই দিয়েছে পলাতকদের। রবিশঙ্কর জানান যে মেহুল চকসির উকিল নিজে জানিয়েছেন যে উনি কংগ্রেসের ঘনিষ্ঠ ব্যাক্তি । প্রসাদ জানান যে ২০১১ ও ২০১৩ তে চকসির সম্পত্তি অপ্রত্যাশিত বৃদ্ধি পায় তখন চকসি কংগ্রেসের খুব ঘনিষ্ট ছিল। রবিশঙ্কর প্রসাদ এই বিষয়ে কংগ্রেসের কাছে সোজাসাপটা জবাব চেয়েছেন। প্রসাদ বলেন, বিজেপি প্রথমের এটা ফাঁস করেছে যে কংগ্রেস এর সময়ে পি চিদাম্বরম হীরা আমদানি করার জন্য খোলা অধিকার রাখা কোম্পানিগুলোর সূচনা বিস্তার করেছিলেন। মেহুল চোকসির কোম্পানি এটার দ্বারা অনেক লাভবান হয়েছিল। এই সিধান্ত ২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের আগে নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কংগ্রেস এখনো দেশের সামনে এটার জবাব দেয়নি যে তাদের এমন সিদ্ধান্তের কারণে কি ছিল।

আপনাদের জানিয়ে , মেহুল চকসি PNB ব্যাঙ্ক কেলেঙ্কারির মাস্টারমাইন্ড এবং সে এখন এন্টিগাতে রয়েছে।সেখানের নাগরিকত্ব করেছে। যদিও ভারত সরকার ওই দেশের সরকারের সাথে লাগাতার কথা বলে চকসির প্রত্যাবর্তনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এন্টিগা ও বার্বুদা সরকার জানিয়েছে যে তারা নীরব মোদীর মামা মেহুল চকসির বৈধ প্রত্যাবর্তনের জন্য চেষ্টা করছে। এর জন্য তারা কানুনি সমস্ত রকমের বিষয় ঘেঁটে দেখছে।

অন্যদিকে CBI নীরব মোদি ও মেহুল চকসিকে আর্থিক পলাতক বলে ঘোষণা করে তাদের সম্পত্তি অধিগ্রহণের জন্য ের কাছে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।মোদী আমলে ভারত একদিকে যেমন বিজয় মালিয়ার মতো লোকেদের ব্যাঙ্কের টাকা ফেরত করতে বাধ্য করছে তেমনি অন্যদিকে নীরব মোদীর মতো ব্যাক্তিদের দেশ ফেরানোর সমগ্র চেষ্টা চালাচ্ছে।