Press "Enter" to skip to content

মুকুল রায়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দিলেন পশ্চিমবাংলার CPIM এর তাবড় নেতা ৷ Bengali News

পশ্চিম বাংলায় দলের তরফ থেকে নতুন দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে মুকুল রায় কে যেন থামানো যাচ্ছে না। একের পর বিরোধী দলগুলিতে ভাঙ্গন ধরানো এখন তার নিত্যনৈমিত্তিক কাজ। এবার ভাঙন বাম শিবিরে। নরহরি মাহাতোর যিনি প্রাক্তন ফরওয়ার্ড ব্লক সংসদ তিনি এবার মুকুল রায়ের হাত ধরে যোগ দিলেন বিজেপিতে। বিজেপির সদর দপ্তরে গিয়ে প্রাক্তন এই বাম নেতা বৈঠক করেন মুকুল রায়ের সঙ্গে বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টা নাগাদ। এবং তারপরই তিনি বিজেপিতে যোগদান করেন। এবার পঞ্চায়েত ভোটে সবথেকে ভালো ফল করেছিলে এই পুরুলিয়াতে। ঠিক তার পরে বাম শিবিরে ভাঙন ধরিয়ে একের পর এক নেতাকে তাদের দিকে টেনে নিচ্ছে এটা যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ।

২০০৯ সালের লোকসভা ভোটে এই নরহরি মাহাতো তখনকার কংগ্রেস প্রার্থী শান্তিরাম মাহাতোকে হারিয়ে জয়লাভ করেছিলেন। মুকুলবাবু আগেই বলে দিয়েছিলেন যে, দল বদলের খেলায় আমি তৃনমূল কে টেক্কা দেব, তিনি এখন সেই কাজটিই করে দেখাচ্ছেন। এছাড়াও মুকুল বাবু বলেন যে, যারা যারা তৃনমূলে যোগ দিচ্ছেন তাদের কোনো সাপোর্ট নেই। কিন্তু এই নরহরি মাহাতো যিনি বিজেপিতে যোগ দিলেন তার পুরুলিয়াতে রয়েছে বেশ বড়ো একটা ভোট ব্যাংক।

তিনি হাতের তালুর মত পুরুলিয়ার মানুষদের চেনেন। বাম জামানায় বড়ো বড়ো নেতারা পুরুলিয়া গেলে তাকে সমিহ করে চলত। তাই এইরকম একটা দাপুটে নেতার বিজেপি তে যোগ দেওয়ার ফলে বিজেপি সাংগঠনিক দিক দিয়ে আরও শক্তিশালী হয়ে উঠল। এই মুহুত্তে বিজেপির প্রায়োরিটি জেলা হিসাবে উঠে আসছে পুরুলিয়ার নাম। পঞ্চায়েত ভোটে এই জেলাতে বিজেপির কাছে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারে নি তৃনমূল কংগ্রেস। বিজেপির উত্থান কে দমিয়ে রাখার জন্য তৃনমূলের গুন্ডাবাহিনী ত্রিলোচন মাহাতো-সহ দুই বিজেপি কর্মীকে খুন করে দেহ ঝুলিয়ে দেয়।

তাই নিয়ে উত্তাল হয় রাজ্য রাজনীতি। তারপর বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি পুরুলিয়ায় সভাও করেন। এমন পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে পুরুলিয়া একজন দাপুটে বাম নেতা কে দলে টেনে নিয়ে যে বিজেপি মাস্টার স্ট্রোক দিল সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এই যে এত বড়ো বড়ো নেতাদের নিজেদের দলে টেনে নিয়ে বিজেপি যে নিখুঁত অপারেশনের গুলি করছে এর নেপথ্যে কিন্তু রয়েছেন বাংলার রাজনীতিতে চাণক্য নামে পরিচিত মুকুল রায় মহাশয়।

মুকুলবাবু তৃনমূল ত্যাগ করে চলে আসার পর থেকে তিনি বামফ্রন্টের বেশকিছু দাপুটে নেতাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রেখেছিলেন। মুকুল বাবুর উদ্দ্যেশ্য ছিল ঠিক সময়ে রাজ্যের শাসক দল তৃনমূলকে চমক দিয়ে এই সব নেতাদের বিজেপিতে যোগ দেওয়াবেন। তিনি তার কাজে সফল। বাম শিবিরের এইরকম দাপুটে নেতারা বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর থেকে নীচু তলার বাম নেতাকর্মীরাও এখন বিজেপির সমর্থনে গলা ফাটাচ্ছেন।

এইদিন মুকুলবাবু বলেন যে, এটা কোনো বিক্ষিপ্ত ঘটনা নয় যে, নরহরি বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। এই মুহুত্তে দাঁড়িয়ে বিজেপিতে যোগদান করতে চাইছেন ফরওয়ার্ড ব্লক, , কংগ্রেস, আরএসপি এবং সর্বোপরি তৃণমূল থেকে বহু দাপুটে নেতাকর্মী। তার কারন বাংলায় তৃণমূলের অত্যাচার থেকে এবার সবাই রেহাই চাইছেন। মানুষের মধ্যে চোরাস্রোত বইছে তৃণমূলের পতনের জন্য। আগামীতে সুনামির সৃস্টি হবে।
#অগ্নিপুত্র