Press "Enter" to skip to content

S-400 চুক্তি নিয়ে আমেরিকার পর এবার চিন্তায় পাকিস্থান ও চীন। দুই দেশ মিলে এবার যা করলো….

ও রুশের মধ্যে হওয়া S-400 চুক্তি নিয়ে শুধু নয়, একইসাথে ও পাকিস্তানের মধ্যেও হৈচৈ শুরু হয়েগেছে। S-400 চুক্তি নিয়ে ের সামরিক বাহিনীর মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। প্রথম দিকে এই চুক্তি নিয়ে সবথেকে চিন্তিত ছিল মোদী সরকারকে এই চুক্তি না করার জন্য চাপ দিয়েছিল। ট্রাম প্রশাসন ভারতকে এই চুক্তি বাতিল করে আমেরিকার সাথে ডিফেন্স চুক্তি বাড়ানোর জন্য বলেছিল। যদিও মোদী সরকার আমেরিকাকে তোয়াক্কা না করে রুশের সাথে S-400 চুক্তি করে ফেলেছে। আশঙ্কা করা হচ্ছিল এই চুক্তি করার জন্য , ভারতের উপর ব্যান লাগাতে পারে বলে অনুমান করছিল অনেকেই। এখানে অন্যদিকে চীন ও পাকিস্থান নতুন নীতি তৈরি করতে শুরু করে দিয়েছে। জানিয়ে দি, পাকিস্থান বায়ু সেনার দিকে ভারতের সাথে টক্কর নেওয়ার জন্য চীনের কাছে উচ্চ শ্রেণীর ড্রোন কেনার যোজনা বানিয়েছে।

চীন আধিকারিকভাবে এই ঘোষণা করে দিয়েছে। চীন জানিয়েছে যে তাদের তরফ থেকে ৪৮ উচ্চগুণসম্পন্ন ড্রোন পাকিস্তানকে বেঁচা হবে। এই ড্রোন যেকোনো ঋতুতে উড়ানো সম্ভব হবে। তবে চুক্তি কতো টাকার মধ্যে হবে তা নিয়ে কোনো তথ্য জানানো হয়নি। চীনের তরফে পাকিস্থানকে যে ড্রোন দেওয়া হবে তার নাম ভুউং লুং ২ এটা উচ্চশ্রেণীর ২ টি ড্রোন।

S-400

প্রয়োজনে এই ড্রোন থেকে আক্রমণ করাও সম্ভব বলে জানা গিয়েছে। এই ড্রোনকে চীনি কোম্পানি চ্যাংডু এয়ারক্রাফট বানিয়েছে। চীনের সরকারি খবরের কাগজ গ্লোবাল টাইমসের মত অনুযায়ী আগত সময়ে চীন ও পাকিস্থান মিলে এই ড্রোনের উৎপাদন করবে। তবে বিশেষজ্ঞদের মতে চীন সম্পুর্ন পরিকল্পনামাফিক পাকিস্থানকে বোকা বানানোর জন্য পাকিস্থানকে এই ড্রোন কেনার পরামর্শ দিয়েছে এবং আগত দিনে একসাতে মিলে ড্রোন তৈরি করার আশ্বাস দিয়েছে।

ভারতের S-400 এর ভয় দেখিয়ে চীন, নিজের ড্রোন বিক্রি করে ব্যাবসা বৃদ্ধি করছে। এমনিতেই এখন পাকিস্থানের অবস্থা কাঙাল হয়ে পড়েছে তার মধ্যে চীন যেনতেন প্রকারে সস্তা ড্রোনের লোভ দেখিয়ে লাভ তুলতে চাইছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শুধু এই নয় চীনের উৎপাদন করা যেকোন কিছু উৎপাদনে, খরচে কম লাগলেও গুণমান তেমন ভালো হয়না। এই কারণে চীন বেশিরভাগ সময় এই সমস্থ কিছু বেচার ক্ষেত্রে পাকিস্থানকে টার্গেট বানিয়ে ফেলে।