Press "Enter" to skip to content

নিশ্চিত হলো প্রথম রাফেল ডেলিভারির তারিখ! চীন, পাকিস্থান ও কংগ্রেসের মুখে ঝামা ঘষে দিলো মোদী সরকার।

সমস্ত অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে এবার ভারতীয় বায়ুসেনা পেতে চলেছে রাফায়েল বিমান। এই রাফায়েল বিমান দিয়ে খুব সহজেই যুদ্ধে শত্রুপক্ষ কে ধ্বংস করে দেওয়া যায়। এবার এই শক্তিশালী বিমান ভারতীয় বায়ুসেনা পেতে চলেছে। আগামী বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যেই এই বিমান হাতে চলে আসবে এমন খবরই পাওয়া যাচ্ছে। ফ্রান্সের সাথে ২০১৬ সালে ৩৬ টি রাফায়েল বিমান কেনার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয় ভারত। তার জন্য ভারত প্রথমে ২৫০০০ কোটি টাকা দেবে ফ্রান্সকে।
শুধুমাত্র উন্নত অস্ত্রসস্ত্রের অভাবে বায়ুসেনার কাজে কিছুটা ঘাটতি পড়ছিল সেইজন্যই ভারত সরকার তাড়াতাড়ি ফ্রান্সের সাথে চুক্তি করে এই রাফায়েল বিমান কেনার জন্য। মোট ৫৯,০০০ কোটি টাকা খরচ করে ৩৬ টি বিমাম নেওয়ার কথা হয় ফ্রান্সের সাথে। সরকারের তরফে জানানো হয়েছে যে, প্রথম পক্ষে ফ্রান্সকে ২৫০০০ কোটি টাকা দেওয়ার চুক্তি ছিল।

এর জন্য ফ্রান্সের সাথে সমস্তরকম কথা হয়েছিল। ফলে ১৫–২৯ % সঞ্চয় করতে পেরেছে বায়ুসেনা। সরকারের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, যদি দ্বিতীয় শর্ত সঠিকভাবে কাজে লেগে যায় তাহলে এই সঞ্চয়ের পরিমান ২৯ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৪০ শতাংশ করে দেওয়া সম্ভব হবে। বায়ুসেনার আধিকারিকরা জানিয়েছেন এখন যেরকম উন্নত অস্ত্রশস্ত্র ব্যাবহার করতে পারছেন তারা, এটা যদি ২০০৮ সালে কংগ্রেসের বদলে বিজেপি সরকার থাকত তাহলে এই চুক্তি আরও অনেক বেশি সফল হত।

এই চুক্তির সাফল্য দেখে এক বায়ুসেনার উচ্চ আধিকারিক জানিয়েছেন যে, আমাদের হাতে এই সময় যেসমস্ত যুদ্ধ বিমান গুলি রয়েছে সেগুলি অত্যন্ত পুরনো হয়ে গিয়েছে এবং সেগুলির ক্ষমতাও কমে এসেছে তাই যদি এই চুক্তি সঠিক সময়ে না করা হত বা আমাদের হাতে যদি অস্ত্রশস্ত্র আসতে দেরি হত তাহলে আমাদের শক্তি অনেকটা হ্রাস পেত। এর জন্য বায়ু সেনার তরফে সরকার কে ধন্যবাদ জানানো হয়েছে।

বায়ু সেনার তরফে আরও জানানো হয়েছে যে, আমাদের যুদ্ধের জন্য কমপক্ষে ৪২ টি শক্তিশালী বিমান প্রয়োজন হয় কিন্তু আমাদের হাতে এই মুহুত্তে রয়েছে মাত্র ৩১ টি সেগুলিও খুব একটা কাজে আসে না। তাই মোদী সরকার ঠিক সময়ে এই চুক্তি করে আমাদের অত্যন্ত উপকার করেছেন। এই গুলি খুব তাড়াতাড়ি আমাদের হাতে আসতে চলেছে এর জন্য কেন্দ্রীয় সরকার সমস্তরকম ব্যাবস্থা করছেন।

সেই সাথে বায়ু সেনার আধিকারিকরা কংগ্রেস কে কটাক্ষ করতেও ছাড়েন নি। তিনি বলেন যে মোদী সরকার দেশের সুবিধার্থে এত ভালো ভালো সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন কিন্তু কংগ্রেস এবং গান্ধী নিজেদের ভোটের জন্য সেই ব্যাপার গুলি নিয়েও রাজনীতি করছে এবং সাধারণ মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছেন। এটা দেশের কোনো রাজনৈতিক দলের কাছে কাম্য নয়। জানিয়ে ডি চীন ও পাকিস্তান কংগ্রেসের সাথে মিলে ভারতে ডিল আটকাতে চেয়েছিল কিন্তু এখন পাপ্ত খবর অনুযায়ী কংগ্রেসের পুরো প্ল্যান ভেস্তে গেল।
#অগ্নিপুত্র