তৃণমূলের উপর ক্ষোভ দিলীপের! মমতার মুসলিম তোষণ নিয়ে তীব্র কড়া ভাষায় প্রতিবাদ করলেন দিলীপ ঘোষ!

ইসলামি আগ্রাসনের জন্য এক বাংলাকে(বাংলাদেশ) হারিয়েছে বাঙালি হিন্দুরা, এখন আর একবার অবশিষ্ট পশ্চিমবঙ্গকে ইসলামিকরণ করার পক্রিয়া শুরু করেছে কট্টরপন্থীরা এমটাই দাবি বিশিষ্ট মহলের। এমন পরিস্থিতিতে রাজ্যের বর্তমান তৃণমূল সরকার যেভাবে কট্টরপন্থী,জিহাদিদের মদত জোগাচ্ছে তাই নিয়ে চিন্তিত রাষ্ট্রবাদী হিন্দুরা। রাষ্ট্রবাদী হিন্দুদের পাশাপাশি বিজেপিও এই ইস্যুতে তৃনমুলের উপর আক্রমণ শুরু করে দিয়েছে। এদিন তৃণমূলের বিভাজনমূলক নেতৃত্বের জন্য মমতার ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করলেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।পুরুলিয়ার সফরে এসে তাঁর বিরুদ্ধে সমালোচনায় মুখর হলেন দিলীপবাবু। শুক্রবার মহুলা গ্রামে দলীয় “গণতন্ত্র বাঁচাও” সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে তিনি মমতার বিরুক্ষে একের পর এক অভিযোগ তুলে বলেন ধর্ম বিভাজনমূলক তার নেতৃত্ব সমন্ধে ।অভিযোগে তিনি বলেন সংখ্যালঘুদের পক্ষহপাতত্ব করতে গিয়ে সংখ্যাগুরুদের বিস্মৃত হয়েছেন তিনি ।হিজাব পরে নমাজ পড়ে আজ তিনি দুর্গাপূজার মন্ত্র ভুলেছেন। তার নেতৃত্বে এত কেন ভেদাভেদ?সংখ্যালঘুদের জন্য হাসপাতাল,পলিটেকনিক কলেজ,ইস্কুল -তাহলে সংখ্যাগুরুদের জন্য কি রয়েছে ? তাদের কি অসুখ করেনা ? তাদের কি দুঃখ নেই ?

আজ যখন বুঝেছেন হিন্দুরা ক্ষেপে উঠেছ তখন তিনি অনুশোচনা করে বলছেন ‘আমরাও রামনবমী করি ‘।এতেই কি সব অপকর্মের প্রায়শ্চিত হতে পারে।যখন চারিনিদিকে লোকজন না খতে পেয়ে মারা যাচ্ছেন তখন তৃণমূল নেতারা স্বাস্থ্য মেলায় ফুর্তি করছেন।জঙ্গলমহলে ও আজ বিজেপির রাজত্ব তা তিনি কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না। তাই তো গুন্ডা দিয়ে বিজেপি কর্মীদের খুন করা হচ্ছে ।এবিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ হলে উত্তর আসছে ঝাড়খন্ড থেকে লোক এসে গুন্ডামি করছে।

ঝাড়খন্ড থেকে লোক পশ্চিমবঙ্গে আসেনা বরণ এখনকার লোক ঝাড়খণ্ড যায় রোজগারের আশায়।এ রাজ্যে শিল্প নেই ,কর্ম নেই আছে শুধু দুর্নীতির কালো ছায়া ।সরাসরি নাম না নিয়ে কঠোরশব্দে সচেতন করেন তিনি ।রথযাত্রা সম্মন্ধে সতর্ক করলেন রথের সামনে আসবেন না এবং আটকানোর চেষ্টাও করবেন না ।

ক্ষমতা থাকলে আমাদের চেয়েও বড় রথযাত্রা করে দেখান ।এছাড়াও তিনি বিজেপি দলের এমাসের বিভিন্ন কর্মসূচির কথা উল্লেখ করে জানান মোদী ৪টি ও অমিত শাহ৮ টি সভা করবেন।সভাগুলিতে সাধারণ মানুষকে যোগদানের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Open

Close