in

যুদ্ধে এবার শত্রু ট্যাঙ্কের কাল হবে এই মিসাইল, DRDO করলো সফল পরীক্ষণ

যুদ্ধে ট্যাঙ্ককে ধ্বংস করার জন্য ডিআরডিও দ্বারা বিকশিত পোর্টেবল অ্যান্টি ট্যাঙ্ক গাইডেড মিসাইলের সফল পরীক্ষণ করল ভারত। রাজস্থানের পোখরান রেঞ্জে বুধবার এই পরীক্ষা করা হয়। এই মিসাইলের ফলে ভারতীয় স্থল সেনার শক্তি অনেক গুন বৃদ্ধি পাবে।

এই মিসাইলের সাহায্যে যুদ্ধের সময় শত্রুদের ট্যাঙ্ক সহজেই নষ্ট করা যাবে। ভারতীয় সেনা এরকম মিসাইলের দাবি অনেক বছর ধরেই করছিল। ডিআরডিও রাজস্থানের মরুভূমিতে কাল ২-৩ কিমি স্ট্রাইক রেঞ্জের সাথে এই মিসাইলের পরীক্ষা করে।

অ্যান্টি ট্যাঙ্ক গাইডেড মিসাইল কে এটিজিএম এর নামে জানা যায়। এই মিসাইল আর্ম ট্যাঙ্ককে ধ্বংস করতে সক্ষম। এই মিসাইল তিন প্রকারের হয়, প্রথম প্রকার ম্যান পোর্টেবেল মানে একে কাঁধে করে যেকোন যায়গায় নিয়ে যাওয়া যেতে পারে। দ্বিতীয় ‘ট্যাঙ্ক মাউন্ট” আর তৃতীয় হেলিকপ্টার অথবা যুদ্ধ বিমানে মাউন্ট।

এটিজিএম মিসাইল অন্য গাইডেড মিসাইলের মতই কাজ করে। এই মিসাইলে কোন নিশ্তিত টার্গেটকে আগে থেকেই স্থির করা হয়। আর তারপর এটিকে ফায়ার করা হয়। এই মিসাইলে লক্ষ্যকে ধ্বংস করার ক্ষমতা অনেক বেশি।

ভারত নিজেদের মিসাইল পুরোপুরি বিকশিত না হওয়া পর্যন্ত ফ্র্যান্সের থেকে ৫০০০ টি অ্যান্টি ট্যাঙ্ক মিসাইল কিনবে। আর এরজন্য প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর নেতৃত্বে প্রতিরক্ষা সামগ্রী আমদানি সমিতির বৈঠকে মঞ্জুরি ও দেওয়া হয়।

সেদিন যদি নেহেরু মেহেরবান না হত, তাহলে আজ চীন ও পেহেলবান হত না!

“অনেক নেতা দেখেছি তবে নতুন ভারত গড়ার জন্য নরেন্দ্র মোদীকেই প্রয়োজন”: রতন টাটা।