Press "Enter" to skip to content

ইমানুয়েল ম্যাক্রনের বক্তব্যে মুখ পুড়লো কংগ্রেস ও বামপন্থীদের! রাফেল নিয়ে খোলাখুলি মন্তব্য করলেন ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি।

এবার আরো একবার এক বিশ্বনেতা কংগ্রেস, বামপন্থী ও দেশের দালাল মিডিয়ার মুখে ঝামা ঘষে দিলেন। বিগত কিছু সপ্তাহ ধরে কংগ্রেস লাগাতার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উপর মিথ্যা অভিযোগ এনেছিল। কংগ্রেস অভিযোগ ছুড়তে ছুড়তে এমন জায়গায় পৌঁছে যায় যে বিনা প্রমানের ভিত্তিতেই তারা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চোর বলে উক্তি করে। এখন ফ্রান্সের বর্তমান রাষ্ট্রপতি এমন মন্তব্য করেছেন যা পুরো বিরোধীদলকে বড়ো ধাক্কা দেবে। জানিয়ে দি, ফ্রান্স ভিতো পাওয়ার অধিকারী একটা দেশ এবং সেই দেশের রাষ্ট্রপতি পরিষ্কার ভাষায় রাফেল নিয়ে মুখ খুলেছেন। সরাসরি জানিয়েছেন যে রাফেল চুক্তিতে মোদীর উপর অভিযোগ আনার কোনো মানেই হয়না। আপনাদের এটাও জানিয়ে দি, এই খবর নিশ্চিত করেছে ANI সংস্থা এবং এর উপর ভিডিও প্রকাশ করেছে তারা।

খবরের নিশ্চয়তার উপর তথ্য জানানো কারণ এই যে, কিছুদিন আগেই দেশের দালাল মিডিয়া দাবি করেছিল, ফ্রান্সের পূর্ব রাষ্ট্রপতি হল্যান্ড নাকি রাফেল নিয়ে মোদীকে দোষারোপ করেছেন। কিন্তু এই বিষয়ে মিডিয়া কোনো ভিডিও ফুটেজ অথবা ঠিক মতো কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেনি। শেষ অবধি হল্যান্ড নিজে মুখ খুলে বলেন, ভারতের মিডিয়া ও কংগ্রেস মিথ্যা প্রচার করছে। এখন ANI সম্পুর্ন ভিডিও ফুটেজের সাথে জানিয়েছে ফ্রান্সের বর্তমান রাষ্ট্রপতি ইমানুয়েল ম্যাক্রন রাফেল নিয়ে কংগ্রেস ও দালাল মিডিয়ার মুখে ঝামা ঘষে দিয়েছেন ।

ইমানুয়েল ম্যাক্রন জানিয়েছেন নিয়ে কোনো দুর্নীতি হয়নি। উনি বলেন , এটা দুই সরকারের মধ্যে হওয়া ডিল এর মধ্যে কোনো দূর্নীতি হওয়ার সুযোগ নেই। ম্যাক্রন বলেন, আমি সেই সময় ক্ষমতায় ছিলাম না কিন্তু এটা সরকার টু সরকার কন্টাক্ট তাই মোদীর বিরুদ্ধে উঠানো সমস্থ অভিযোগ ভিত্তিহীন। সরকার এর সাথে সরকারের সরাসরি চুক্তি হওয়ায় মাঝে কোনো দালাল বা কমিশনের গল্প থাকে না, ফলে দুর্নীতি হওয়ার সুযোগো থাকে না। ভারতে কংগ্রেস আমলে বফোর্স থেকে শুরু করে যতগুলি দুর্নীতি হয়েছে সব জায়গাইতেই মাঝে দালাল ছিল যার জন্য কংগ্রেস ঘোটালা করতে সক্ষম হয়েছিল।

ম্যাক্রন সাফ বলেন, সরকার যা বলেছে তা ঠিক বলেছে, এটা সরকারের সাথে সরকারের চুক্তি এর মধ্যে কোনো দালাল, কোনো কমিশন, কোনো দুর্নীত নেই। অনেকের দাবি কংগ্রেস, চীনের চাপে সরকারকে ঘিরে ফেলার চেষ্টা করছে কারণ চীন চাইনা ভারতের কাছে রাফেল আসুক। রাফেল ডিল আটকানোর জন্য কংগ্রেস চীনের থেকে ২২ হাজার কোটি টাকার ফান্ড নিয়েছে বলেও অভিযোগ ওঠে এসেছে। রাফেল ডিল আটকানোর জন্য কংগ্রেস সমস্থ প্রয়াস করবে এবং আদালতের দ্বারস্থও হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে। আর এই সমস্ত কিছুই চীনের নির্দেশে হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

লোকসভা ভোট সামনে আসার সাথে সাথে চীন, পাকিস্থান একসাথে কংগ্রেসের সাথে মিলে মোদী সরকারকে সরানোর চেষ্টা করছে। কারণ রাফেলের কোনো জবাব পাকিস্থান বা চীনের কাছে নেই। পাকিস্থানের মন্ত্রীরা লিখিত ভাবে রাহুল গান্ধীকে সমর্থন জানিয়েছে, পাকিস্থান তাদের ইসলামিক ধর্মগুরুদের নির্দেশ দিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া হোক বা অন্য কোনোভাবে হোক ভারতের সিয়া মুসলিমদের ভোট যেন মোদী না পায় সেদিকে খেয়াল রেখে প্রচার চালাতে। সুন্নি মুসলিমদের ভোট মোদী এমনিতেই পাবে না এই বিষয়ে লক্ষ রেখে মোদী বিরোধী এজেন্ডা চালানো হচ্ছে।