Press "Enter" to skip to content

বেরিয়ে এলো আসল সত্য: প্রতিদিনের খাবারের খরচ নিজের পকেট থেকে দেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। করেন না সরকারি পয়সার ব্যায়।

প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ব্যাপারে জানার সবার মধ্যেই একটা আগ্রহ থাকে। যেমন তিনি কি খান, উনার পছন্দ- অপছন্দ ইত্যাদি। বিশেষ করে বিরোধীরা তো প্রধানমন্ত্রী মোদীর উপর এমন এমন প্রশ্ন তুলে যা সম্পূর্নভাবে ভিত্তিহীন হয়। বিশেষ করে দেশের বামপন্থীরা দাবি করে যে প্রধানমন্ত্রী মোদী নাকি নিজের ব্যক্তিগত কাজে সরকারি টাকার অপচয় করেন। যদিও তারা তাদের দাবির ভিত্তিতে উপযুক্ত যুক্তি দিতে পারে না। এখনো ওবদি এই সমস্তকিছুর উপর RTI এর মাধ্যমে জবাব চাওয়া হয়েছে এবং সাগর খারী নামক এক ব্যক্তি দ্বারা RTI ( জানার অধিকার) এর মাধ্যমে যে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল তার উপর খুব অবাক করা তথ্য সামনে এসেছে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে উপর যে প্রশ্ন তোলা হয়েছিলো RTI এর তরফ দিয়ে, সেখান থেকে জানা গেছে প্রধানমন্ত্রীর খাবারের খরচা ভারত সরকারের টাকা দিয়ে হয়ে নাকি মোদি নিজের পকেট থেকে তাঁর খাবারের খরচা দেয়। প্রথমত জানিয়ে দি, PM মোদির তার কুক বদ্রি মিনার হাতে বানানো বাজরার রুটি ও খিচুড়ি পছন্দ। তিনি বেশির ভাগ সময় গুজরাটি খাবারই খান। মোদি শুদ্ধ শাকাহারি। মোদি তার রেজিডান্স ৭ ইসকোরসের উপর কিচেন এর বিল নিজেই দেয় কারণ তিনি এটিকে পার্সোনাল খরচ(ব্যক্তিগত খরচ) বলেই মনে করেন। এই খবরটিও একটি RTI এর দ্বারাই দেয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী মোদী মনে করেন, নিজের খাওয়া দাওয়ার খরচ সম্পুর্নভাবে ব্যাক্তিগত সেখানে সরকারি অর্থকোষ কোনোভাবেই ব্যাবহার করা উচিত নয়। সেই চিন্তা থেকেই উনি নিজের বেতনের টাকা থেকে রোজপ্রতিদিনের খাবারের খরচ মেটান। প্রধানমন্ত্রী মোদী কোনোভাবেই খাবারের খরচের জন্য সরকারি অর্থ ব্যয় করেন না।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি প্রধানমন্ত্রী পদের শপথ নেয়ার পর একদিনও ছুটি নেননি। তিনি বিগত সাড়ে চার বছর ধরে না ছুটি নিয়ে কাজ করে চলেছেন। এক RTI আর্জির জবাবে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে বলেন ” হি ইস অন ডিউটি অল দ্যা টাইম।” এমনকি প্রধানমন্ত্রী মোদী নিজের পোশাকের খরচাও মোদি নিজের পকেট থেকে উঠান, ভারত সরকারের টাকায় নয়। জানিয়ে এই সমস্ত RTI থেকে প্রাপ্ত যার জন্য।

পাঠকদের কাছে প্রশ্নঃ প্রধানমন্ত্রী মোদী সংক্রান্ত এই তথ্যের উপর আপনাদের প্রতিক্রিয়া জানান।

 

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.