Press "Enter" to skip to content

“বিশ্বকে অবাক করে চীনকে পেছনে ফেলে এক নম্বর স্থান নেওয়ার পথে ভারত।”

মোদি সরকারের আমলে ভারতবর্ষ সব দিক থেকে ব্যাপক উন্নতি লাভ করছে। মোদি সরকার যে কথা দিয়েছিলেন দেশকে উন্নতির শীর্ষে পৌঁছে দেবেন সেই কথা তিনি রেখেছেন। এখন ভারতবর্ষ দিনের পর দিন ক্রমশ উপর দিকে উঠে আসছে অর্থনৈতিক দিক দিয়ে। ভারতবর্ষ তাদের এই হারকে যদি বজায় রাখতে পারে তাহলে পিছনে ফেলে দেবে চীন কে এবং সেটা সামনের বছরের মধ্যেই সম্ভব হয়ে যাবে। আইএমএফ তরফে এমনটা হবার সম্ভাবনার কথায় জানানো হয়েছে। আইএমএফ তাদের বিশেষ রিপোর্টে জানিয়েছেন যে, যদি সমস্ত ব্যাপারগুলি ঠিকঠাক মত চলতে থাকে তাহলে ৭.৩ শতাংশ হারে ের হবে। এবং ২০১৯ সালের মধ্যেই ৭.৪ শতাংশ বৃদ্ধি হয়ে দাঁড়াতে পারে ের আর্থিক বৃদ্ধির হার।

আর এমনটা যদি হয়ে যায় তাহলেই বিশ্বের তাবড় তাবড় দেশ কে বহু পিছনে ফেলে দিয়ে ভারতবর্ষ হয়ে যাবে সবচেয়ে বিকাশশীল অর্থনীতি দেশ। পেট্রোল ডিজেলের দাম বাড়ার ফলে এখন একটু অস্বস্তির মধ্যে রয়েছে সরকার। এইরকম একটা পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে আইএমএফের এহেন দাবি অবশ্যই স্বস্তি দেবে সরকারকে।

আইএমএফের তরফে মনে করা হচ্ছে যে, ের দুটি যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নোট বাতিল করা এবং পুরো দেশে জি.এস.টি চালু, মূলত এই দুটি সিদ্ধান্তের কারনেই ভারতবর্ষের অর্থনীতি আবার ফিরে এসেছে এবং উন্নতির দিশা দেখছে। তারা ের নোট বাতিলের সিদ্ধন্তকে নিয়ে মন্তব্য করেন যে, একসময় পুরো দেশ এর বিরোধিতা করলেও এখন দেশের মানুষ বুঝতে পেরেছেন যে সেই সিদ্ধান্তটা দেশের উন্নতির জন্যই নেওয়া হয়েছিল।

এর ফলে দেশের অর্থনীতি চরম উন্নতি করেছে এবং ভবিষ্যৎ এ আরও বাড়বে।আইএমএফের হিসেবে উঠে আসছে, চলতি বছরের শেষে ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হার চিনের চেয়ে ০.৭ শতাংশ বেশি হয়ে যাবে। এবং সেটা ২০১৯-এর মধ্যে বেড়ে হয়ে যাবে ১.২ শতাংশ বেশি হবে।
#অগ্নিপুত্র