Press "Enter" to skip to content

ফতোয়ার উপর বড়ো সিধান্ত হাই কোর্টের! সম্পূর্ণ ব্যান করা হলো ফতোয়া জারি।

এমনটিতে বর্তমানে দেশে আদালতের নানা চর্চা নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট চর্চায় রয়েছে কিন্তু ে হাই কোর্ট একটা বড়ো ও গুরুত্বপূর্ণ রায় দিয়েছে যা নিয়ে কোনো চর্চা হচ্ছে না। এই খবর প্রায় চাপা পড়ে গেছে। উত্তরখণ্ডে এখন শরিয়া বা কোরানের নিয়ম নয় বরং আইন ও সংবিধান চলবে। এটা নিয়েই হাইকোর্ট একটা বড় রায় দিয়েছে। আসলে হাইকোর্ট ফতোয়ার উপর প্রতিবন্ধকতা লাগিয়ে দিয়েছে। হাই কোর্ট আদেশ দিয়েছে যদি কেউ দিয়ে অসামাজিক ও বেআইনি বার্তা দেয় তাহলে তার বিরুদ্ধে কড়া ব্যাবস্থা নিতে। ভারতে কিছু কট্টরপন্থী আছে যারা ধর্মের নামে জারি করে হুমকি দেয়।

অন্যদিকে মিডিয়া বিষয়টিকে ধার্মিক অধিকার ও বুদ্ধিজীবীরা ধর্মনিরপেক্ষতার দোহাই দিয়ে এই কট্টরপন্থীদের বাঁচানোর জন্য লেগে পড়ে। কারোর মাথা কেটে নেওয়ার ফতোয়া, কাউকে হত্যা করার ফতোয়া প্রায় শুনতে পাওয়া যায় যা আসলে একপ্রকার বড়ো অপরাধ। ভারতের আইন অনুযায়ী হুমকি, ধমকি দিয়ে হিংসা ছড়াতে পারেন না।

কিন্তু দেশের মিডিয়া ও বুদ্ধিজীবীরা এই অপরাধগুলোকে সেকুলারিজমের দোহাই দিয়ে আড়াল করে রাখে এবং এই সমস্থকিছুকও ধার্মিক অধিকার বলে দাবি করে। কিন্তু এবার উত্তরখন্ড হাই কোর্টের নির্দেশের পর কোনো ব্যক্তি ধর্মের নামে বা ফতোয়ার নামে অসামাজিক বার্তা ছড়াতে পারবে না।

উত্তরখন্ডে এবার ফতোয়া সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে , যদি কেউ করে তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে। উত্তরখণ্ডে এখন ফতোয়া ব্যান করা হয়েছে এবং যা হবে সংবিধান মেনে হবে। আদালত জানিয়েছে ফতোয়া অসাংবিধানিক ও অবৈধ। ফতোয়া মানুষের মৌলিক অধিকার কেড়ে নেয়, মর্যাদা হনন করে বলে জানায় আদালত।