Press "Enter" to skip to content

বাংলাদেশী ফিরদৌসকে নিয়ে প্রচার করে সংখ্যালঘু ভোটব্যাঙ্ক প্রভাবিত করছে তৃণমূল! EC এর দ্বারস্থ বিজেপি।

মমতা ব্যানার্জী একটু বেশি বাংলাদেশি প্রেম দেখাচ্ছেন-এমন দাবি আরো একবার তুললো বিজেপি। আসলে লোকসভা নির্বাচনে যখন চারিদিকে নেতা নেত্রীরা সভা, রালির মাধ্যমে প্রচার চালাচ্ছে তখন তৃণমূল এক বাংলাদেশি অভিনেতাকে নিয়ে প্রচারে নেমেছে। বাংলাদেশী মুসলিম অভিনেতা ফেরদৌস আহমেদ এখন তৃণমূলের হয়ে প্রচার চালাচ্ছে যা নিয়ে দেশজুড়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। প্রথমত জানিয়ে দি, বাইরের দেশের ব্যাক্তি সে ভারতের নির্বাচন প্রভাবিত করলে এটা সরাসরি অন্যায়। বাইরের দেশে কেউ ভিসা নিয়ে ভারতে দু পয়সা রোজকার করতেই পারে। কিন্তু ভারতের নির্বাচনকে প্রভাবিত করার অধিকার কোনো বিদেশীর নেই।

কিন্তু তা সত্ত্বেও তৃণমূল অবৈধ বাংলাদেশী এবং মুসলিম ভোটব্যাঙ্ককে খুশি করতে বাংলাদেশি অভিনেতাকে দিয়ে প্রচার  চালিয়েছে। রায়গঞ্জে একটা রোড শোতে বাংলাদেশী ফিরদৌস তৃণমূলের হয়ে প্রচার চালিয়েছেন। ফিরদৌস আহমেদ ভারতে এসে সিনেমার কাজ করে থাকেন কিন্তু এখন তিনি ভারতের নিবার্চনকে প্রভাবিত করতে শুরু করেছেন।

কোনো বিদেশি ভারত এলে সে ওয়ার্কিং ভিসা বা ট্যুরিস্ট ভিসা ইত্যাদি নিয়ে আসে। সেক্ষত্রে ভিসার নিয়ম অনুযায়ী ওই বিদেশি শুধুমাত্র একটা বিশেষ কাজ করতে পারে। কিন্তু ফিরদৌস আহমেদ ভারতে এসে সংখ্যা লঘু ভোটকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন।বিজেপি তৃণমূলের এই অনৈতিক কাজকে নিয়ে নির্বাচন কমিশনের কাছে দারস্ত হয়েছিল। কৈলাস বিজয়বর্গী বলেন, তৃণমূলের একমাত্র ভরসা বাংলাদেশী।

ভোটের ক্ষেত্রে অবৈধ বাংলাদেশি ভোটব্যাঙ্ক এবং প্রচারের জন্য বাংলাদেশী মুসলিম অভিনেতা। ফিরদৌস কেন রাজ্যের রাজনীতিতে নাক গোলাচ্ছে এই নিয়ে সোস্যাল মিডিয়াতেও তীব্র প্রতিবাদ দেখা যাচ্ছে। সবথেকে বড় বিষয় এই যে, নির্বাচন কমিশন এই ইস্যুতে একটাও বার্তা দিচ্ছে না। নির্বাচন কমিশনের মুখ্য আরিজ আফতাফ তৃনমূলকে যেন সবকিছুতেই ছাড় দিয়ে রেখেছেন। প্রথমত, পঞ্চায়েত নির্বাচনে এত লোকের প্রাণ যাওয়া দেখার পরেও প্রত্যেক বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী নেই। আর এখন ফিরদৌস কে নিয়ে প্রচার করাতেও নির্বাচন কমিশনের কোনো বাধা নেই।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.