Press "Enter" to skip to content

সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি ভাঙার অভিযোগে মমতা ব্যানার্জী ও তৃণমূলের ৮ নেতার বিরুদ্ধে দায়ের হলো FIR

অসমের NRC এর পর থেকে সবথেকে বেশি কোন নেত্রীর নাম যদি রাজনৈতিক মহলে বার বার উঠে এসেছে তাহলে তিনি হলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। আসলে NRC প্রকাশিত হওয়ার পর একদিকে যখন সারা দেশ এই পদক্ষেপের সমর্থন করছিলেন তখন কেন্দ্র সরকারকে আক্রমন করতে শুরু করেছিলেন মমতা ব্যানার্জী। শুধু এই নয় কেন্দ্র যখন অসমে বহু সংখ্যায় অর্ধসেনা নিয়োজিত করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রেখেছিল তখন মমতা ব্যানার্জী গৃহযুদ্ধ ও রক্তগঙ্গার মতো শব্দ ব্যবহার করে নিজের বিরুদ্ধে জনতার ক্ষোপ উস্কে দিয়েছিলেন। এবার এক অসমবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে গোয়াহাটির গীতানগর থানায়
এফআইআর দায়ের করা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর বিরুদ্ধে। সেই সাথে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে তার দলে আট নেতার বিরুদ্ধে।

তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ মমতা সহ তার দলের লোকেরা এনআরসি নিয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করছেন অসমে। ধ্রুবজ্যোতি তালুকদার যিনি এই অভিযোগ করেছেন তিনি অসমের বাসিন্দা। উনি অভিযোগে লেখেন, মমতা ব্যানার্জী কোনো কারন ছাড়ায় অসমের ব্যাপারে অযথা মাথা ঘামাচ্ছেন। অসমে সুপ্রিমকোর্টের নির্দেশ মেনে যে এনআরসি প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বার বার সেই শান্তিপূর্ণ প্রক্রিয়াকে ক্ষতি করার চেষ্টা করছেন তিনি। এমন কি তিনি নানান মিথ্যা প্রচার করে ক্রমাগত সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা লাগানো চেষ্টা করে যাচ্ছেন অসমে।

অভিযোগকারীর অভিযোগ অনুসারে ৩০ শে জুলাই একটি প্রেস কনফারেন্সে মাধ্যমে মমতা ব্যানার্জী অসম এনআরসি নিয়ে দ্বায়িত্বহীন মন্তব্য করেছিলেন। যেটা করার কোনো অধিকার তার নেই কারন তিনি অসমের কেউ নয়। তার সেই মন্তব্যের ফলে ক্ষোভ জেগে উঠেছে মানুষের মধ্যে। যার ফলে এলাকাতে জারি করা হয়েছে ১৪৪ ধারা।তার আরও অভিযোগ যে এলাকাতে অশান্তি ছড়ানোর জন্য তৃনমূলের লোকেরা ইচ্ছা করে সাধারণ মানুষকে ভুল বোঝানোর চেষ্টা করছেন। মমতা ব্যানার্জী তার একটি সভায় বলেন যে যদি এই ভাবে NRC চলতে থাকে তাহলে দেশে গৃহ যুদ্ধ লাগিয়ে দেবেন তিনি এবং তিনি আরও বলেন যে রক্ত গঙ্গা বয়ে যাবে পুরো দেশ জুড়ে।

মুলত তার এই সব উক্তিতেই ওই ব্যাক্তির অভিযোগ। মমতা ব্যানার্জী গৃহযুদ্ধের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন যে দেশর যে ৪০ লক্ষ মানুষের নাম সেই তালিকায় নেই তাদের মধ্যে অনেক সংখ্যক বাঙালি আছে শুধু তাই নয় সেই তালিকায় আছে বিহারি ও মুসলিম সম্প্রদায়ভুক্ত লোকজন। তার এই উক্তিকে কেন্দ্র করে তিনি বলেন যে মমতা রাজ্যের সাধারন মানুষের মধ্যে বাঙালি ও বিহারি কথা উল্লেখ করা তাদের মধ্যে বিভেদ সৃস্টি করার চেষ্টা করছেন।
#অগ্নিপুত্র