Press "Enter" to skip to content

গান্ধী পরিবারের অতীত ও গোপনীয়তা সম্পর্কে বড়ো পর্দাফাঁস করলেন অভিনেত্রী পায়েল রাহত্যাগি।

এমনিতে বলিউড এমন একটা নোংরা জায়গায় পরিণত হয়েছে যেখানে পাকিস্থান সমর্থক, হিন্দু বিরোধী, দেশদ্রোহী মানসিকতার সিনেমা প্রস্তুতকারীতে পরিপূর্ণ রয়েছে। কিন্তু বলা হয় যেখানে পাক থাকে সেখানে পদ্মও ফোটে। একই ভাবে বলিউডেও কিছুজন আছেন যারা দেশের ,সমাজের কথা বলেন এবং সত্য বলার সাহস রাখেন। এনারা সত্য বলার সাহস রাখেন এটা জেনেও যে বামপন্থী মিডিয়া এনাদের বিরুদ্ধে এজেন্ডা চালাবে। এমন কিছুজনের মধ্যে রয়েছেন অভিনেত্রী পায়েল রোহতাগি। গতকাল পায়েল গান্ধী পরিবারের ইতিহাস সম্পর্কে বোড়ো বক্তব্য দেন যার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে পড়েছে। ইন্দিরা ইংল্যান্ডের এক মসজিদে ের সাথে নিকাহ করেছিল। এটা স্বাধীনতার আগে ঘটনা।

কিন্তু জওহরলাল নেহেরু এই বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি কারণ নেহেরু প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন এবং দেশ ধর্মের ভিত্তিতে ভাগ হয়েছিল। তাই নেহেরু ফিরোজ খানকে সারনেম পরিবর্তন করে করার জন্য বলেন। এরপর ফিরোজ খান এবং ইন্দ্রিরা গান্ধী ইন্দিরা খান হয়ে যান। পায়েল বলেন সোনিয়া গান্ধীর মেয়ে প্রিয়াঙ্কা ভাদ্রার দুই বাচ্চার ইসলামিক নাম রেখেছেন। একজনের নাম রেহান ভাদ্রা আরেকজনের নাম মারেয়া ভাদ্রা।

এছাড়াও পায়েল বলেন, জহরলাল নেহেরুর পূর্বজের নাম গিয়াসউদ্দিন গাজী ছিল। পায়েল বলেন এই পুরো পরিবার দেশের জনগণকে মূর্খ বানানোর জন্য নিজেদের পরিচয় বদলে ছিল। বলিউডে যেভাবে বেশি সফলতা পাওয়ার জন্য দীপিল কুমার হিন্দু নাম ব্যবহার করেছিল সেইভাবে ফিরোজ খান ও তার স্ত্রী নাম পরিবর্তন করে ক্ষমতা হাতিয়েছিল। জানিয়ে দি ফিরোজ খানের কবর এখনো এলহাবাদে রয়েছে। অভিনেত্রী পায়েল আগেও বহুবার সোশ্যাল মিডিয়ায় দেশ সম্পর্কিত বিষয় তুলে ধরেছেন। এর আগে পায়েল কেরালার বন্যা নিয়ে ভিডিও করেছিলেন যা নিয়ে ের সমর্থকদের সাথে উনার বিতর্ক বেঁধেছিল।

জানলে অবাক হবেন, কাল ৮ সেপ্টম্বর উনার মরণ দিবস ছিল কিন্তু কেউ উনাকে স্মরণ করেনি। কারণ উনার পরিবার যেখানে রাহুল, প্রিয়াঙ্কা ও সোনিয়ার মতো লোকজন রয়েছে তারা কোনোভাবেই ‘খান’ দেখাতে চান না, তারা ‘গান্ধী’ দেখাতে চান। কারণ খান সারনেম প্রকাশ হলে ভোট ব্যাঙ্কে প্রভাব পড়বে। যার জন্য নিজের পূর্বপুরুষকে শ্রদ্ধাঞ্জলি পর্যন্ত দেন না। তবে এই রাহুল , সোনিয়ারাই ইন্দ্রিরা গান্ধীকে শ্রদ্ধাঞ্জলি দেওয়ার জন্য পৌঁছে যান।