Press "Enter" to skip to content

ধর্ম নিয়ে ফেঁসে গেল কংগ্রেস ! রাহুল গান্ধীর দাদু ফিরোজ খানের কবর নিয়ে শুরু বিতর্ক।

প্রয়াগরাজে (এলহাবাদে) থাকা ফিরোজ জাহাঙ্গীর খানের(গান্ধী) কবর নিয়ে নতুন বিতর্ক শুরু হয়ে গিয়েছে। প্রয়াগরাজে কবরস্থলের মধ্যে থাকা ফিরোজ জাহাঙ্গীরের কবর আজও তার উত্তরসুরি রাহুল গান্ধীর জন্য অপেক্ষা করছে এমনটাই মত উত্তরপ্রদেশের পূর্ব উপমুখ্যমন্ত্রী দীনেশ শর্মার। জানিয়ে দি ফিরোজ খান কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীর দাদু। আসলে রাহুল গান্ধী তার দাদি(ঠাকুমা) ইন্দিরা গান্ধীর সমাধিতে বহুবার পুষ্পাঞ্জলি দিতে গেলেও দাদু ফিরোজ খানের কবরে কোনোদিন যাননি। ফিরোজ জাহাঙ্গীর এর ধর্ম নিয়ে দেশের মানুষের মধ্যে অনেক মত আছে যার জন্য কংগ্রেস ফিরোজ গান্ধীকে এড়িয়ে চলেন। কংগ্রেস মনে করে যদি ফিরোজ এর ধর্ম নিয়ে তোলপাড় হয় তাহলে হিন্দুবহুল ভারত তাদের পার্টিকে ছুঁড়ে ফেলে দেবে।

এই নিয়ে সম্প্রতি রাহুল গান্ধীকে আক্রমণ করেছিলেন দীনেশ শর্মা। যারপর থেকে ফিরোজ খানের কবর নিয়ে লাগাতার বিতর্ক বেড়েই চলেছে। দীনেশ শর্মা গুজরাটের এক মঞ্চ ঠেলে রাহুল গান্ধীকে কটাক্ষ করে বলেন, রাহুল এখনো পর্যন্ত একবারের জন্য ফিরোজ খানের কবর স্থলে যাননি। রাহুলের উচিত কবরস্থলে গিয়ে মোমবাতি জ্বালিয়ে আসা। কবরস্থলে গিয়ে মোমবাতি জ্বালিয়ে আসলে ফিরোজ খানের আত্মা শান্তি পাবেন বলে উক্তি করেন দীনেশ শর্মা।

একইসাথে উনি ফিরোজ খানের বংশধর রাহুল গান্ধীর গৈত্র নিয়েও কটাক্ষ করেন। কবরের দেখাশোনার কাজে থাকা বাবুলাল দীনেশ শর্মার মন্তব্যের সমর্থন করার সাথে কিছুক্ষেত্রে বিরোধ করেন। বাবুলাল বলেন, রাহুল গান্ধীর উচিত তার দাদুর কবরে আসা। বাবুলাল বলেন রাহুল গান্ধী তার দাদুর কবরে এক বারের জন্যেও আসেনি এটা সম্পূর্ন সঠিন নয়। রাহুল গান্ধী ও সোনিয়া গান্ধী ১০ বছর আগে এই কবরে এসেছিলেন।

যেহেতু ফিরোজ খান রাহুল গান্ধীর নিজের দাদু তাই উনার উচিত কবরস্থলে এসে উনাকে স্মরণ করা। রাহুল গান্ধী বহুবার এলহাবাদের এই কবরস্থলের পাস দিয়ে যান কিন্তু কবর স্থলে তার পূর্বপুরুষকে শ্রদ্ধা জানাতে আসেন না। ১৯৬০ সালে ফিরোজ জাহাঙ্গীর এর মৃত্যু হয় এবং উনাকে প্রয়াগরাজের এই স্থলে কবর দেওয়া হয়।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.