মমতার ধরনায় হাজির থাকা পাঁচ আইপিএস এর বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিতে চলছে কেন্দ্র, কেড়ে নেওয়া হতে পারে

রাজ্যে রাজীব কুমারের কাণ্ডের পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী সিবিআই এর বিরুদ্ধে ধরনায় বসেছিলেন। পরে সুপ্রিম কোর্টের রায়কে স্বাগত জানিয়ে সেই ধরনা খতম করেছিলেন উনি। মমতা ব্যানার্জীর দুর্নীতিতে অভিযুক্ত রাজীব কুমারের সমর্থনে তথা কেন্দ এবং সিবিআই এর বিরুদ্ধে করা ধরনায় সমর্থন জানিয়েছিলেন দেশের অনেক নেতা নেত্রীরা।

IPS VIrendra

এমনকি সেই ধরনায় ওনার সাথে হাজির ও ছিলেন দেশের তাবড় তাবড় নেতারা। কিন্তু দুঃখের কথা হল, ওনার সমর্থনে যারা যারা এগিয়ে এসেছিলেন। তাঁদের সবাই দুর্নীতিতে অভিযুক্ত। উদাহরণ স্বরুপ কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী ওনার সমর্থনে এগিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু ওনার নামে অগাস্টা ওয়েস্টল্যান্ড চপার দুর্নীতি অভিযোগ উঠেছে, তাছাড়াও ন্যাশানাল হেরাল্ড দুর্নীতির অভিযোগ ও আছে ওনার নামে

Gyanwant Singh

উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব ও ওনার সমর্থনে এগিয়ে এসেছিলেন। ওনার বিরুদ্ধে ওনার শাসন কালে অবৈধ জমি খনন মামলা নিয়ে চরম দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। ওই দুর্নীতির সাথে কয়েকশ কোটি টাকার তছরুপের ও অভিযোগ ওঠে।

Supratim Sarkar

উত্তরপ্রদেশের আরেক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মায়াবতী ও মমতা ব্যানার্জীর সমর্থনে এগিয়ে এসেছিলেন। ওনার বিরুদ্ধে ওনার শাসন কালে মূর্তি দুর্নীতির অভিযোগ আছে, যেটা ইডি এখনো তদন্ত করছে। ওই দুর্নীতিতে আনুমানিক ১৫০০ কোটি টাকার আত্মসাৎ করার অভিযোগ আছে।

Anuj Sharma

বিহারের প্রাক্তন ডেপুটি চিফ মিনিস্টার তেজ প্রতাপ যাদব ও মমতা ব্যানার্জীর সমর্থনে এগিয়ে এসেছিলেন। তবে ওনার বিরুদ্ধে তেমন কোন দুর্নীতির অভিযোগ না থাকলেও ওনার পুরো পরিবারকেই দুর্নীতিগ্রস্ত পরিবার বলে মানা হয়। ওনার পিতা এবং বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী চারা ঘোটালার জন্য এখনো জেল খাটছেন। এমন কি ওনার শাসন কালে বিহারের আইন শৃঙ্খলা ভেঙে রাজ্যকে জঙ্গল রাজ বানিয়ে রাখার অভিযোগ তো আছেই।

Vineet Kumar Goyal

অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডু খোদ কলকাতায় এসে মুখ্যমন্ত্রীর ধরনা সভায় যোগ দিয়েছিলেন। ওনাকে দেশের সবথেকে বড়লোক মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে জানা যায়। ওনার কয়েকশ কোটি টাকার সম্পত্তি ও আছে। এমনকি মমতা ব্যানার্জীর মত উনিও রাজ্যে সিবিআই ঢোকা নিয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন।

তবে এবার মমতা ব্যানার্জীর ধরনা মঞ্চে উপস্থিত থাকা আইপিএস অফিসারের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিতে চলেছে কেন্দ্র। সুত্রের মতে রুল বুক ভেঙে রাজনৈতিক ধরনায় উপস্থিত তাহাক্র জন্য পাঁচ আইপিএস অফিসার পদক ও কেড়ে নিতে পারে কেন্দ্র।

ওই পাঁচ আইপিএস অফিসার হলেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সুপ্রতিম সরকার, রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র, এডিজি আইনশৃঙ্খলা অনুজ শর্মা, বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার জ্ঞানবন্ত সিংহ ও আইপিএস বিনীত গোয়েল। এই পাঁচ অফিসারের দেওয়া পদক ও কেড়ে নিতে আপ্রে কেন্দ্র।

Leave a Reply

you're currently offline

Open

Close