Press "Enter" to skip to content

মিশন শক্তির অনুমোদন দেয়নি প্রাক্তন কংগ্রেস সরকার, ফাঁস করলেন ইউপিএ জমানার DRDO প্রধান!

মিশন শক্তি সফল হওয়ার পরেই কংগ্রেস বাহবা কুড়াতে আর কৃতিত্ব নিতে ময়দানে নেমে পড়েছে। টুইটারে কংগ্রেসের অফিসিয়াল পেজ থেকে এই মিশনের জন্য জওহর লাল নেহেরুকে কৃতিত্ব দিচ্ছে। তো আরেকদিকে গুজরাট কংগ্রেসের দাপুটে নেতা আহমেদ প্যাটেল টুইট করে মনমোহন সিং এর দূরদর্শিতার জন্য এই মিশন সফল হয়েছে বলে জানাচ্ছেন।

কংগ্রেসের সভাপতি আবার এদের থেকে একধাপ উপরে গিয়ে নরেন্দ্র মোদীকে কটাক্ষ করে বলেছেন, ‘ এই কৃতিত্ব আপনার না।” যদিও নরেন্দ্র মোদী এই সাফল্যের পর কখনই নিজের অথবা নিজের সরকার কৃতিত্ব বলে উল্লেখ করেন নি। কিন্তু কংগ্রেস নিজেরাই কৃতিত্ব চাইছে, আবার নিজেরাই নরেন্দ্র মোদীকে কটাক্ষ করে বলছে এই কৃতিত্ব আপনার না!

নরেন্দ্র মোদী এই মিশন সফল হওয়ার পর জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিয়ে এর সম্পূর্ণ কৃতিত্ব মহাকাশ গবেষণা সংস্থা আর ডিআরডিও কে দিয়েছেন। উনি দেশের বিজ্ঞানীদেরও ধন্যবাদ জানিয়েছেন, যাদের জন্য এই কাজ সফল করা সম্ভব হয়েছে।

কংগ্রেসের সব নেতাই ভারতের এই সাফল্যে খুশি জাহির করার থেকে নরেন্দ্র মোদীকে আক্রমণ করা সঠিক মনে করেছেন। এমনকি এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীও নরেন্দ্র মোদীকে এই ইস্যু নিয়ে আক্রমণ করেছেন। এবং তিনি বিরুদ্ধে নালিশ ও জানাবেন বলেছেন!

আরেকদিকে এই প্রকল্প শুরু হয় ১৯৬২ সালে ১৯৬২ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত কংগ্রেস এদেশে ৪৭ বছর রাজত্ব করেছেন। কিন্তু কখনো মিশন “শক্তি” কে পরীক্ষণ করার সময় পায়নি! আর আজ সেই কংগ্রেসই এই মিশনের সাফলতার জন্য কৃতিত্ব নিতে হাজির।

আর  ইতিমধ্যে ইউপিএ আমলের প্রধান ভিকে সারস্বত এই মিশন দেরি করার পিছনে প্রাক্তন কংগ্রেস সরকারকেই দুষেছেন। তিনি জানিয়েছেন কংগ্রেসের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং এর কাছে এই মিশনের জন্য অনুমতি চাওয়া হলেও তিনি এই মিশন করার অনুমতি দেননি।

তিনি আরও জানান, ‘ নরেন্দ্র মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর সতীশ রেড্ডি ও প্রস্তাবটি প্রধানমন্ত্রী মোদীর কাছে পেশ করেন। নরেন্দ্র মোদী তখন সাহস দেখিয়েছিলেন বলেই আজ ভারত ে নাম লেখাতে পারল।”

11 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.