Press "Enter" to skip to content

সরকারের বড় উপহার: গাই পালনকারী ব্যাক্তিদের মাসে ১.৮০ লক্ষ টাকা দেবে সরকার।

মোদী আমলে দেশজুড়ে বিকাশ হওয়ার সাথে সাথে গো মাতার হত্যা বন্ধ, গো পালন ইত্যাদির উপর লক্ষ রাখা হচ্ছে। দুধ রপ্তানিকারী দেশ হিসেবে ভারত বিগত কিছু বছরে পিছিয়ে পড়েছিল কিন্তু মোদী ক্ষমতায় আসার পর ভারত পুনরায় দুধ রপ্তানিতে বিশ্বে প্রথম স্থান অধিকার করেছে। জানিয়ে দি, ভারতীয় গায়ের দুধ অন্যান দেশের দুধের থেকে উন্নত মানের যার জন্য ভারত থেকে যাওয়া দুধের চাহিদাও অন্য দেশে খুব বেশি থাকে। কিন্তু অতিরিক্ত গো-হত্যা এবং আধুনিকতার নামে গো-পালন বন্ধ করে দেওয়ার জন্য ভারতে দুধ উৎপাদন অনেকাংশে কমে গেছে। তবে এবং উত্তরপ্রদেশের যোগী সরকার ভারতের গো-বংশের রক্ষা এবং দুধ উৎপাদনের উপর জোর দিয়েছে।

যোগী সরকার উত্তরপ্রদেশে বিশ্বের সবথেকে বড় মোবাইল ফোন নির্মাণ কারখানা তৈরি করে বেকার যুবকদের বড় উপহার দিয়েছেন। এখন যারা গো-প্রতিপালন করবেন তাদের জন্য যোগী সরকার বড় ঘোষণা করতে চলেছে। উত্তরপ্রদেশের প্রতিপশুপালন মন্ত্রী এসপি সিং বাঘেল যোগী সরকারকে এই বিষয়ে এক পস্তাব পেশ করেছেন। পস্তাবে গো-সংরক্ষণ এবং তার সাথে জুড়ে থাকা রোজগার ব্যবস্থাকে বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে।প্রস্তাবে বলা হয়েছে, কৃষক বা অন্য কোনো সাধারণ ব্যাক্তির কাছে যদি ৫ বিঘা জমি থাকে তাহলে সে নিজস্ব গোসালা খুলতে পারে। সেই গোসলায় রাখা প্রত্যেক গো-বংশকে দেখভাল করার জন্য সরকার অনুদান প্রদান করবে। যোগী সরকার রাজ্যের প্রত্যেক জেলায় গো-সংরক্ষণ সদন নির্মাণের কথা ঘোষণা করেছেন।

প্রত্যেক গো-সংরক্ষণ কেন্দ্রের জন্য ১.২০ কোটি খরচ করা হবে। রাজ্যের ৫২ টি স্থানে এই গো- সংরক্ষন সদন নির্মাণ এর কাজ চলছে।প্রত্যেক পঞ্চায়েত এলাকার মানুষের জন্য গো- প্রতিপালন করার সুযোগ থাকবে। যারাই ১০ টি গো-বংশের দেখাশোনা করবে তাদেরকে সরকার প্রত্যেকদিন ৩০০ টাকা প্রদান করবে। মাসিক ৯০০০ টাকা আয় করার জন্য সরকার এই সুবন্দোবস্ত খুব তাড়াতাড়ি সম্পন্ন করতে চলেছে।সূত্রের খবর অনুযায়ী, যারা নিজস্ব জমিতে গো-সংরক্ষণ কেন্দ্র তৈরি করবে তাদেরকে যোগী সরকার প্রথম মাসে ১.৮০ লক্ষ টাকা অনুদান প্রদান করবে।একইসাথে প্রত্যেক বছর একটা নিদিষ্ট অর্থ প্রদান করবে। নিজস্ব জায়গায় যারা এই কেন্দ্র গড়ে তুলবে তাদের কর্মচারীদেরকেও সরকার মাসিক ৩০০ টাকা প্রদান করবে।

পশুপালন মন্ত্রী এসপি সিং বাঘেল জানিয়েছন এই সিধান্তের ফলে চারটি বড় লাভ হবে-১) গো বংশের রক্ষা করা হবে। ২) দুধের উৎপাদন বাড়িয়ে রাজ্যকে সমৃদ্ধ করা যাবে। ৩) বহু মানুষকে রোজকার প্রদান করা যাবে এবং ৪) জমির ফসলকে খোলা থাকা পশু থেকে রক্ষা করা যাবে।

7 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.