Press "Enter" to skip to content

যারা মোদীকে ভোট দিয়েছে তাদের কলার ধরে বলবো তোমরা বোকা* – সালিম উরফ যোগেন্দ্র, বুদ্ধিজীবী।

এটা আতঙ্কবাদ অথবা নকশালবাদের মানসিকতা বলেই গণ্য হবে যখন কেউ সাধারণ ভোটারদের কলার ধরে মারতে চাইবে BJP কে ভোট দেওয়ার জন্য। কারোর মতের বিরুদ্ধে অন্য কারোর মত থাকতেই পারে, যে কেউ যে কাউকে ভোট দিতে পারে। এটা লোকতান্ত্রিক অধিকার।  মতের বিরুদ্ধে ভোট দিলে তাকে মারধর করা, গালিগালাজ করা, দণ্ডিত করা ইত্যাদি একটা জঘন্য ব্যাক্তির মানসিকতা। যে ব্যক্তির প্রসঙ্গে এখানে কথা বলা হচ্ছে তিনি হলেন , এই ব্যাক্তির আরো এক নাম রয়েছে তা হলো সালিম।

এই ব্যাক্তি গুরুগ্রামের ব্যাক্তিদের কলার ধরতে চাই, তাদের মারধর করতে চাই। সালিমের বিরুদ্ধে গুরুগ্রামের ভোটাররা ভোট দিয়েছেন তাই সে ভোটারদের কলার ধরে মারতে চাই। যোগেন্দ্র যাদব খোলাখুলি ভোটারদের গালিগালাজ দিয়ে অপমানিত করছে। পুনরায় ক্ষমতায় চলে এসেছেন যা নিয়ে প্রচন্ড আক্রোশিত হয়ে রয়েছে যোগেন্দ্র যাদব। BJP লোকসভা নির্বাচনে জয়লাভ করা মোটেও মেনে নিতে পারছে না সালিম উরফ যোগেন্দ্র।

যোগেন্দ্র যাদব এতটাই বিরক্ত হয়ে উঠেছে যে সে, ভোটারদের মারধর করার কথা বলছে। জানিয়ে দি, যোগেন্দ্র যাদব নিজেকে বুদ্ধিজীবী বলে দাবি করে। এই।স্বঘোষিত বুদ্ধিজীবী বলেছেন, ” আমি বার বার গুরুগ্রামের ভোটারদের বলেছিলাম BJP কে হারাতে, কিন্তু তারা সেটা করেনি। আমার ইচ্ছা করছে ভোটারদের কলার ধরে  মূর্খ গুলোকে শিক্ষা দি।” যোগেন্দ্র যাদব বলেন, আমি ভোটারদের বার বার বলেছিলাম নরেন্দ্র মোদী ভারতের ইতিহাসের সবথেকে জালি প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু ভোটাররা আমরা কথা শোনেনি। তাই আমি খুব রেগে আছি, আমি ভোটারদের কলার ধরে বলতে চাই যে মূর্খের দল এ কি করলে তোমরা।

নিজেকে বুদ্ধিজীবী বলা তথা আম আদমি পার্টির ঘনিষ্ট এই ব্যাক্তি দেশের জনতাকে মূর্খ বলে গালি গালাজ করছে। ভোটারদের খোলাখুলি হুমকি দিচ্ছে যা কোনো সভ্য ব্যাক্তি করতে পারে না। সাধারণ জনগণকে মারধর করার কথা বলা এই ব্যাক্তিরা কিছুদন পরেই আরো বিরক্ত হয়ে উঠবে এবং দেশকে অসহিষ্ণু বলে তকমা লাগবে। শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা, তথাকথিত বুদ্ধিজীবীদের গ্যাং কিছুদিন পরেই সক্রিয় হয়ে মাঠে নামবে। আর তার সংকেত যোগেন্দ্র যাদবের মাধ্যমে পাওয়া যাচ্ছে। তবে এবার দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদে আমিত শাহ বসেছেন তাই একটু সাবধানে কথা বলাই তাদের জন্য ভালো হবে এ নিয়ে সন্দেহে অবকাশ নেই।

Comments are closed.