Press "Enter" to skip to content

“পাকিস্তানি মুসলিমরা নির্দোষ, দেশভাগের জন্য ভারত দায়ী” – হামিদ আনসারী, কংগ্রেস নেতা।

কংগ্রেসের বড়ো নেতা ও দেশের প্রাক্তন উপরাষ্ট্রপতি আরো একবার করে বসেছেন। হামিদ আনসারী এক সময় দেশের উপরাষ্ট্রপতি পদে থাকলেও এখনো তিনি ধার্মিক কট্টরতা থেকে বেরিয়ে আসতে পারেননি। কিছুমাস আগেই হামিদ আনসারী ে শারিয়া আদালতের দাবিকে সমর্থন করেছিলেন এবং তিন তালাক ইস্যুতে কট্টরপন্থীদের সাথ দিয়েছিলেন। এখন আরো একবার হামিদ আনসারী বড়ো মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছেন। ১৯৪৭ সালের দেশে ভাগের জন্য উনি সরাসরি ভরতকেই দোষারোপ করেছেন এবং পাকিস্থানিদের ক্লীনচিট দিয়ে দিয়েছেন। মহম্ হামিদ আনসারী তার বক্তব্য দিল্লিতে আয়োজিত সা নাকভির এক বই প্রকাশের অনুষ্ঠানে দিয়েছেন।

মহম্মদ হামিদ আনসারী বলেছেন, ভারত ভাগের দায় মুসলিমদের উপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে কিন্তু সেটা সত্য নয়। পাকিস্থানের মুসলিমরা নির্দোষ বলেই দাবি করেছেন হামিদ আনসারী। জানিয়ে দি এর আগেও হামিদ আনসারী বলেছিলেন ভারতে মুসলিমরা সুরক্ষিত নয়। উল্লেখ্য, ভারত সেই দেশ যেখানে অন্য বৌদ্ধ, শিখ সম্প্রদায় আসল সংখ্যালঘু হলেও দ্বিতীয় সংখ্যাগুরু মুসলিমদের সংখ্যালঘু মর্যাদা দিয়ে সমস্থ রকম সুবিধা প্রদান করা হয়।

অথচ তা সত্ত্বেও হামিদ আনসারী নিজের পদ থেকে সরে যাওয়ার সময় এমন বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলন। এই এখন ভারত ভাগের দায় পাকিস্থানীদের উপর থেকে সরিয়ে ভারতের উপর চাপাতে শুরু করেছেন। আসলে হামিদ আনসারী ভারতের মুসলিমদের বিভ্রান্ত করে ভারতের বিরূদ্ধেই কাজে লাগাতে চাইছেন যেটা এখন কংগ্রেসের মূল নীতি। হামিদ আনসারী সেই কংগ্রেস নেতা যিনি ভারতের জাতীয় পতাকার পর্যন্ত অপমান করেছিলেন।

জানিয়ে দি ১৯৪৭ সালে দেশভাগের দাবি কট্টরপন্থী মুসলিম লীগের নেতৃত্বে তোলা হয়েছিল। ধর্মের ভিত্তিতে দেশ ভাগ করে তৈরি করা হয়েছিল মুসলিম শাসিত পাকিস্তান ও শাসিত ভারত। যদিও পরে কংগ্রেস ভারতকে একটা ধৰ্মনিরপেক্ষ দেশ বানিয়ে মুসলিম তোষণ ও হিন্দু শোষণ শুরু করেছিল।