Press "Enter" to skip to content

রাস্তায় নামাজ পড়লে সুরক্ষা প্রদান, হনুমান চল্লিশা পড়লে বাধা! পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের কাজে আক্রোশিত রামভক্তরা।

পশ্চিমবঙ্গে (West Bengal) মুসলিম তোষণকে কেন্দ্র করে এক খবর সামনে এসেছে। রাস্তায় হনুমান চল্লিশা পড়ায় পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ বর্বরতা দেখিয়ে বাধা প্রদান করেছে বলে অভিযোগ সামনে এসেছে। পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা সহ বেশকিছু স্থানে রাস্তা আটকে নামাজ পড়ার সময় পুলিশ সুরক্ষা প্রদান করে। কিন্তু হনুমান চল্লিশা পড়ায় রামভক্তদের বাধা প্রদান করার ঘটনা সামনে এসেছে। দুই সম্প্রদায়ের জন্য পুলিশের এমন আলাদা আলাদা নীতির উপর প্রশ্ন চিন্হ তৈরি হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে রাস্তা আটকে নামাজ পড়ার ঘটনা প্রায় দিন লক্ষ করা যায়। বিশেষ করে কলকাতা ও তার আশেপাশের এলাকায় নামজিরা পথ আটকে নামাজ পড়ে এবং পুলিশ তাদের সুরক্ষা দিতে ডিউটি পালন করে।

কিন্তু গতকাল হাওড়াতে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন রাস্তায় হনুমান চল্লিশা পড়তে গেলে বাধা দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। হনুমান চল্লিশা পড়ার সময় বড়ো সংখ্যায় পুলিশ ধস্তাধস্তি শুরু করে, যার একটা ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় মাধ্যমে সামনে এসেছে। রাস্তা আটকে নামাজ পড়া নিয়ে হিন্দুদের মধ্যে আক্রোশ রয়েছে তাই তারাও রাস্তায় হনুমান চল্লিশা পড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে সূত্রের খবর। এক ব্যাক্তি জানিয়েছেন, এর আগের দিন যখন হনুমান চল্লিশা পড়া হয়েছিল তখন পুলিশ তাদের বাধা প্রদান করেনি কিন্তু এদিন পুলিশ উগ্ররূপ ধারণ করে।

নামাজ পড়ার সময় নামাজিদের কোনো অসুবিধা না হয় তার জন্য খেয়াল রাখা হয়। কিন্তু হনুমান চল্লিশা পড়ার সময় বাধা প্রদান করা হয়। প্রসঙ্গত জানিয়ে দি, পশ্চিমবঙ্গে মমতা ব্যানার্জীর সরকার রয়েছে এবং পুলিশ প্রশাসনের উপর সরকারের যথেষ্ঠ নিয়ন্ত্রণ আছে। মমতা ব্যানার্জীর সরকারের উপর মুসলিম তোষণের বার বার অভিযোগ ওঠে আসছে। আর গতকাল হনুমান চল্লিশা পাঠে বাধা দেওয়াতেও মমতা সরকারের মুসলিম তোষণকে দায়ী করেছে রামভক্তরা।

you're currently offline