Press "Enter" to skip to content

রাফালে ওড়ার পর এয়ার মার্শাল বললেন, ‘এবার শত্রুরা নিজেদের অউকাত-এর বাইরে যেতে পারবে না”

ভারতীয় বায়ুসেনার এয়ার চিফ মার্শাল রাকেশ কুমার সিং ভদৌরিয়া বৃহস্পতিবার ফ্রান্সের যুদ্ধ বিমান রাফাল নিয়ে আকাশে ওড়েন। এরপর উনি বলেন, রাফালের মতো যুদ্ধ বিমান ভারতের বায়ুসেনার জন্য অতি আবশ্যক। উনি বলেন, একবার এই বিমান ভারতীয় বায়ুসেনায় যুক্ত হয়ে গেলেই, রাফাল আর শুখোই মিলে ভারতের শত্রুদের চিন্তা বাড়িয়ে তুলবে।

রাফালে আকাশে ওড়ার অভিজ্ঞতা শেয়ার করে উনি বলেন, রাফাল নিয়ে আকাশে উড়ে যাওয়া আমার কাছে খুবই সুখের অনুভূতি। আর এর কারণে আমরা অনেক কিছু শিখতেও পারব। উনি বলেন, রাফাল বিমান বায়ুসেনায় যুক্ত করার পর, আমরা এই বিমানের অনেক সুবিধা ভোগ করতে পারব। আমরা এটাই দেখব যে, বায়ুসেনায় যুদ্ধ বিমান শুখোই-৩০ এর সাথে রাফাল বিমান কতটা ম্যাচ করিয়ে উঠতে পারে, আর আমরা এই দুই যুদ্ধ বিমানকে কাজে লাগিয়ে কি কি করতে পারি।

ভায়েস এয়ার চিফ মার্শাল রাকেশ কুমার সিং বলেন, আমাদের বায়ুসেনায় শুখোই তো আছেই, একবার রাফাল যুক্ত হয়ে গেলেই শত্রুরা তাঁদের অউকাতের মধ্যে থাকবে। দুই যুদ্ধ বিমান একসাথে অপারেট হওয়া শুরু হলেই, পাকিস্তান আর তাঁদের ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটানর সাহস দেখাতে পারবেনা।

উনি আরও বলেন, রাফালে যেমন ভাবে টেকনোলজি আর হাতিয়ারের ব্যাবহার করা হয়েছে, সেটি ভারতের পরিকল্পনার দিক থেকে গেম চেঞ্জার প্রমাণিত হবে। আমরা যেমন ভাবে আক্রমনাত্বক মিশন আর যুদ্ধের জন্য প্ল্যানিং করছি, সেই দিক থেকে রাফালের টেকনোলজি আর হাতিয়ারের ব্যাবহার আমাদের জন্য একদম উপযুক্ত।

২০১৪ সালে কেন্দ্রে প্রথমবারের মতো ক্ষমতায় আসার এক বছর পর নরেন্দ্র মোদী ঘোষণা করেছিলেন যে, ভারত ফ্রান্সের থেকে ৩৬ টি অত্যাধুনিক রাফাল বিমান কিনবে। আরেকদিকে ফ্রান্স জানিয়ে দিয়েছে যে, আগামী সেপ্টেম্বর মাসেই ভারত তাঁদের প্রথম রাফাল বিমান পেতে চলেছে।