Press "Enter" to skip to content

পুজোর মুখে পাওয়া গেল পশ্চিমবঙ্গে ভয়ানক অস্ত্র কারখানার খোঁজ! গেপ্তার মহম্মদ তামরেজ ও শাহবুদ্দিন।

কিছুদিন আগেই বিজেপি সাংসদ সুব্রামানিয়াম স্বামী মমতা ব্যানার্জীর মুসলিম তোষণের উপর মন্তব্য করতে গিয়ে বলেছিলেন যে মমতা পশ্চিমবঙ্গকে আতঙ্কবাদীর ফ্যাক্টরি বানিয়ে দিয়েছে। আসলে বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল শাসনে পশ্চিমবঙ্গে বোমাবাজি, খুন নিত্য ঘটনায় পরিণত হয়েছে যার উপর লক্ষ করেই স্বামী মন্তব্য করেছিলেন। তবে এবার পশ্চিমবঙ্গ থেকে এমন খবর সামনে আসছে যা জানার পর যেকোন ভদ্র সমাজের মানুষের ঘুম উড়ে যাবে। বাংলায় দুর্গা পুজোর মুখেই মুসলিম বহুল জেলা মালদহতে একটা বড়ো বোমা ও অবৈধ ভয়ানক অস্ত্র তৈরির কারখানার খোঁজ পাওয়া গেছে। মোদী সরকার দ্বারা পশ্চিমবঙ্গে গোয়েন্দা বিভাগকে সক্রিয় করে রাখা হয়েছে যারপর এখন বড়ো ভয়ানক অস্ত্র তৈরির কারখানার খোঁজ পাওয়া গেছে। গ্রিল ফ্যাক্টরির আড়ালে রমরমিয়ে চলছিল অস্ত্র ও বোমা তৈরির কাজ।

সামনে দুর্গাপূজা আর তাতে আগেই এমন বড়ো ভয়ানক কারখানার হদিস পেয়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পশ্চিমবঙ্গে। মালদহের ের এই অস্ত্র কারখানা থেকে উদ্ধার হয়েছে বিপুল পরিমাণে অস্ত্রশস্ত্র, ২৪টি পাইপগান, বিশাল পরিমাণে অস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম। খবর পাওয়ার পর শুক্রবার রাতে ও মোথাবাড়ি থানার পুলিশ অভিযান চালানোর পর শাহবুদ্দিন ও মহম্মদ তামরেজকে গেপ্তার করে।

তবে গ্রিল ফ্যাক্টরির মালিক ফরিদ শেখ পলাতক বলে পুলিশ জানিয়েছে। জানিয়ে দি এটা সেই কালিয়াচক যেখনে কট্টরপন্থীরা হিন্দু ও পুলিশের উপর আক্রমন চালিয়েছিল। জেলার পুলিশ সুপার এই ব্যাপারে মিডিয়ার কাছে তথ্য দেন। অনেকের দাবি মুসলিম বহুল এই এলাকায় রমরমিয়ে চলা এই ফ্যাক্টরির কথা গ্রামবাসী আগে থেকেই জানতো কিন্তু কেউ পুলিশকে জানায়নি।

পশ্চিমবঙ্গে এত বড়ো অস্ত্র কারখানা কি জন্য তৈরি করা হয়েছিল এ ব্যাপারে বড়ো কি ষড়যন্ত্র ছিল সবকিছুর তদন্ত করছে পুলিশ। জানিয়ে দি, পশ্চিমবঙ্গের মিডিয়া এই খবর সম্পূর্ণভাবে চেপে যাওয়ার চেষ্টা করছে। কোনো আব্দুল গরু চুরি করে মার খেলে যে মিডিয়া চিৎকার করে ডিবেটের পর ডিবেটের আয়োজন করে সেই মিডিয়া এখন এমন বড়ো ভয়ানক কান্ডে মুখে লাগাম লাগিয়ে নিয়েছে।