Press "Enter" to skip to content

পাকিস্থানে ইমরান খানের ঘোষণায় সমস্যায় পড়লেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

পাকিস্থানে নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে এবং পাকিস্থানের নতুন প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন ইমরান খান। ইমরান খানের দল তেহেরেকি এ ইনসাফ বহুমতের সাথে পাকিস্তানে ক্ষমতায় আসতে আসতে চলেছেন। নির্বাচনে জেতার পরেই ইমরান খান বড়ো ঘোষণা করেছেন। ইমরান খান বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী হলে উনি সরকারি আবাসনে থাকবেন না যাতে দেশের VIP সংস্কৃতি শেষ হয়। এখন যেই ইমরান খান ঘোষণা করেছেন যে উনি সরকারি বাংলোয় থাকবেন না সেই মাত্র এই নিয়ে ভারতের তুমুল চর্চা শুরু হয়ে গেছে। আপনি রাজনৈতিক জগৎ সম্পর্কে সক্রিয় হয়ে থাকলে জানবেন যে অরবিন্দ কেজরিওয়ালও দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী পদে বসার আগে এমন ঘোষণা করেছিলেন। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পরই সব ঘোষণা ভুলে যান কেজরিওয়াল।

কেজরিওয়াল নির্বাচনের আগে বলেছিলেন যে উনি মুখ্যমন্ত্রী হলে সরকারি বাংলো, সরকারি গাড়ি, সিকিউরিটি গার্ড বা অন্য কোনো ধরনের সরকারি সাহায্য নেবেন না। কিন্তু হলো ঠিক ঘোষণার বিপরীত। মুখ্যমন্ত্রী পদে বসার সাথে সাথে উনি সরকারি আবাসে শিফট হয়ে যান এবং আরো অন্যান্য সুবিধাও নিতে থাকেন যাতে সবার কাছে হাসির পাত্রে পরিণত হন আপ নেতা কেজরিওয়াল।এখন ইমরানের ঘোষণার পর কেজরিওয়ালের উপর আক্রমণ করেছেন কুমার বিশ্বাস।

কুমার বিশ্বাস লিখেছেন ‘ পাকিস্থান নির্বাচন জেতার পর ইমরান খান সরকারি বাংলো নেবেন না।’ কবি কুমার বিশ্বাসের কথার রাজনৈতিক মনে বোঝার সাথে সাথে লোকে রিটুইট করে সোশ্যাল মিডিয়ায় কেজরিওয়ালের মজা উড়াতে শুরু করেছেন। কেজরিওয়াল যে প্রতিশ্রতি দিয়ে রাখেননি সেই বিষয় আরো একবার দিল্লিতে উঠলে উঠেছে।

ইমরান খান বলেছেন, আমাদের পার্টি পিএম আবাস নেব না এই আবাসে থাকলে আমি লজ্জিত বোধ মরবো তাই এটাকে কোন শিক্ষাকেন্দ্রে বা সাঙ্গাস্কৃতিক কেন্দ্রে তৈরি করে কাজে লাগানো হবে।এর ইমরান খানের এই বক্তব্যের পরেই ভারতে কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে শুরু হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায় আক্রমণ যা এখনো থামবার নাম নিচ্ছে না।