Press "Enter" to skip to content

এবার বিশ্ব তাকিয়ে থাকবে ভারতের দিকে, রাফেলের থেকেও শক্তিশালী লড়াকু বিমান কিনতে চলেছে ভারত।

ইসলামের নামে ভারত মাকে টুকরো করে নায়ক ইসলামিক জিহাদি দেশ তৈরি করেছিল কট্টরপন্থীরা। দেশ ভাগ হওয়ার পর থেকে একদিকে ভারত নিজের আবিষ্কৃত যান নিয়ে চাঁদে পৌঁছে গেছে, অন্যদিকে িরা মাদ্রাসার গন্ডিও পেরোতে পারেনি। অবশ্য মাদ্রাসার গন্ডি না িরা একটা চিন্তা ভাবনা নিয়ে বরাবর দৃঢ় সংকল্প হয়ে রয়েছে সেটা হলো ভারতকে ধ্বংস করা। ে থাকা প্রত্যেক জিহাদির জন্ম থেকেই একটাই স্বপ্ন- হিন্দুস্তান ধ্বংস করে ইসলামিক দেশ তৈরি করা। এই কারণে নিজের দেশের ছাত্রছাত্রীদের হাতে কম্পিউটার না ধরতে পারলেও, পারমাণবিক অস্ত্র অবশ্যই প্রদান করে। ের এই উগ্রপন্থী জিহাদি মানসিকতার জন্যে ভারতকেও সবসময় তৈরি থাকতে হয়।

জানিয়ে দি, মোদী সরকার এবার বায়ুসেনায় বিশ্বের সবথেকে বিপদজনক লড়াকু বিমান সামিল করতে চলেছে। এই খবর সামনে আসার পাকিস্থানে বসে থেকে ভারত ধ্বংস করার স্বপ্ন দেখা জিহাদি কট্টরপন্থীদের ঘুম উড়ে গিয়েছে। মোদী সরকার বিশ্বের সবথেকে বিপদজনক তৎকাল লড়াকু বিমান কিনতে চলেছে। চীন ও পাকিস্তানের দেশের দিকে লক্ষ্য রেখে ভারত কখনোই দেশবাসীর সুরক্ষা নিয়ে আপস করতে চাই না। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী শীঘ্রই মোদী সরকার তৎকালীন লড়াকু বিমান এডভান্স রূপ কিনতে চলেছে।

আমেরিকা ভারতের এই পদক্ষেপে না বাচক ইঙ্গিত দিয়েছে, তাতে অবশ্য ভারতের উপর কোনো প্রভাব পড়বে না বলেই মনে করা হচ্ছে। কারণ আমেরিকার নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ভারত এর আগে দুটো বড় বড় চুক্তি সম্পন্ন করেছে। কিছুমাস আগেই ভারত, আমেরিকার নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও রুশের s-400 ডিফেন্স চুক্তি সম্পন্ন করেছিল। শুধু এই নয়, আমেরিকার নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ভারত ইরানের সাথে তেল আমদানির চুক্তি সম্পন্ন করেছিল।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্পষ্ট জানিয়েছেন, ভারত একটা স্বাধীন দেশ যার উপর কোনো দেশের প্রভাব কাজ করতে পারবে না। প্রধানমন্ত্রী মোদীর কথায়, ভারত ১৩৫ কোটির দেশ, আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি করার ক্ষমতা এবার ভারতের আছে। খুশির খবর এই যে, ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় লড়াকু বিমান কেনার বিষয়ে সমগ্র পরিকল্পনা চালাচ্ছে।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.