Press "Enter" to skip to content

সংযুক্ত রাষ্ট্রে ভারতের বড় জয়! মোদীর কূটনীতি দেখে হতাশ চীন-পাকিস্থান।

দেশের ক্ষমতা যখন থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাতে এসেছে সেদিন থেকে ভারত বহু উপলদ্ধি হাসিল করতে সক্ষম হচ্ছে। বৰ্তমানে প্রায় দিন ভারত একের পর এক বড় খবর পাচ্ছে যা প্রত্যেক ভারতীয়দের গর্বিত করে। কিছুদিন আগেই ইরানের চা বাহার বন্দরগাঁও এই নিয়ন্ত্রণ ভারতের হাতে সপে দেওয়া হয়েছে। তবে এখন ভারত যে উপলদ্ধি হাসিল করেছে তা ভারতের প্রতিবেশী দেশ চীন ও পাকিস্থানের চিন্তা বাড়িয়ে দিয়েছ। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী ভারত এখন সংযুক্ত রাষ্ট্র মানবাধিকার পরিষদের একটা সদস্যে পরিণত হয়েছে। প্ৰধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আরো এক বড় কূটনৈতিক সাফল্যের ফল সামনে এসেছে।

ভারত এই সদস্যতা নির্বাচনে জিতে লাভ করেছে। সংযুক্ত রাষ্ট্র মানবাধিকার পরিষদের সদস্য হওয়ার জন্য ৯৬ টি ভোটের প্রয়োজন হয়ে থাকে কিন্তু ভারত ১৮৮ টি ভোট হয়েছিল। এটাকে সমগ্র ভাবেই বড় জয় বলে মান্যতা দেওয়া যায়। এবার ভারত পুরো ৩ বছরের জন্য সংযুক্ত রাষ্ট্র মানবাধিকা পরিষদের সদস্য হয়ে থাকবে। এক্ষেত্রে ভারতের কার্যকাল ২০১৯ এর জানুয়ারি মাস থেকে শুরু হতে চলেছে।

খুব গোপনীয়তার সাথে হওয়া মতদানের মাধ্যমে ভারত ভোট লাভ করে সংযুক্ত রাষ্ট্র মানকবাধিকার পরিষদের সদস্য লাভ করেছে। ভারত ছাড়াও বিশ্বের আরো ১৮ টি দেশ বহুমত পেয়ে সদস্যতা লাভ করেছে। এশিয়া প্রশান্ত ক্যাটাগরিতে ভারত মানবাধিকারের সদস্যতা পেয়েছে।১০৪৬-৪৭ সালে সামাজিক ও আর্থিক পরিষদের একটা সমিতি হিসেবে নির্মাণ করা হয়েছিল।

এই সমিতি বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন দেশের নাগরিকত্ব, মহিলাদের স্বাধীনতা, আন্তঃরাষ্ট্রীয় বিল ইত্যাদির উপর কাজ করে। হিউম্যান রাইটস কাউন্সিল নামে পরিচিত এই সমিতির ভারত একজন নির্বাচিত সদস্যে পরিণত হয়েছে। বহরিন, ফিলিপিন্স এর মত দেশ ভারতের সাথে সংযুক্ত রাষ্ট্র মানবাধিকার পরিষদের সদস্য হিসেবে রয়েছে। ভারতের এই জয়ের পেছনে মোদীর কূটনীতিকে দায়ী করছে রাষ্ট্রবাদীরা।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.