Press "Enter" to skip to content

আন্তর্জাতিক বানিজ্যে মোদীর মাস্টারস্ট্রোক! ইরানের সাথে বিনিময় প্রথায় লেনদেন করবে ভারত।

আমেরিকার নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ভারত ও ইরানের মধ্যে লেনদেন বিনা বাধায় চলছে। ভারত ও ইরানের মধ্যে লেনদেন জারি রাখার জন্য ভারতীয় মুদ্রার ব্যাবহার করার উপর চুক্তি সম্পন্ন হয়েছিল। ভারত ইরানের থেকে এক বড় মাত্রায় তেল আমদানি করে কিন্তু পেমেন্ট ভারতীয় মুদ্রায় করতে হয় অন্যদিকে অন্যান দেশের থেকে মাল আমদানি করলে পেমেন্ট ডলারে করতে হয়। ভারতীয় মুদ্রায় পেমেন্ট করলে ভারত বেশি লাভবান হয় কারণ এতে ভারতকে ডলার কিনতে এক্সট্রা টাকা খরচ করতে হয় না। আমেরিকার নিষেধাজ্ঞার ফলে এখন ইরান ভালোরকম সমস্যায় পড়েছে। আসলে আমেরিকার নিষেধাজ্ঞা জারির ফলে কোনো দেশ ইরানের সাথে চুক্তি করতে পারছে না। এর জন্য ইরানের মধ্যে খাদ্য সংকটের সৃষ্টি হচ্ছে।

ইরানে খাদ্য সংকটের এই পরিস্থিতি বেশ কয়েকমাস থেকেই তৈরি হয়েছে। তাই ইরান এবার ভারতের সাথে বিনিময় প্রথার উপর বাণিজ্য চালাবে। অর্থাৎ এক জিনিসের বদলে অন্য জিনিস আদান প্রদান হবে ভারত ও ইরানের মধ্যে। এবার থেকে ইরান তেল রপ্তানির পরিবর্তে ভারত থেকে চাল আমদানি করবে। ইয়ান কয়েকমাস আগেই এই প্রস্তাব ভারতের সামনে রেখেছিল। সেই সময় ভারত এই প্রস্তাবের উপর অভ্যন্তরীণ আলোচনা করবে বলে জানিয়েছিল।

কিন্তু এবার এই প্রস্তাবের উপর মোহর লাগাতে পস্তুতি নিচ্ছে ভারত ও ইরানের সরকার। এবার ইরান থেকে আনা তেলের দাম ভারত চালের মাধ্যমে মিটিয়ে দেবে। আগের বছর ইরানের উপর পাকিস্থান ব্যান লাগিয়েছিল যার জন্য ইরান থেকে তেল কেনা দেশগুলির মধ্যে তেলের সংকট দেখা যায়। কিন্তু ভারতের বৃদ্ধি পাওয়া প্রভাব দেখে আমেরিকা ভারতকে এই ব্যান থেকে সরিয়ে রেখেছিল। অর্থাৎ ভারত ইরানের সাথে যেকোনো চুক্তি করতে পারে এমনটা জানিয়েছিল আমেরিকা। কাঁচা তেলের আমদানি করা দেশের তালিকায় ভারত টপ লিস্টে রয়েছে। সৌদি আরব, ইরাক,নাইজেরিয়ার, ভেনেজুয়েলা সহ ইরানের থেকে ভারত কাঁচা তেলে ক্রয় করে।

মোট আমদানির ১২-১৩% ভারত ইরান থেকে ক্রয় করে। বিগত বছরে ভারত ইরান থেকে ৭ আরব ডলার কাঁচা তেল আমদানি করেছিল। এছাড়াও ভারত ইরানের কাছে বহুমাত্রায় সার আমদানি করে থাকে।ভারত উৎপন্ন বাসমতী চালের ৪০% রপ্তানি করে, তথা চাল রপ্তানি করা দেশের তালিকায় ভারত টপ লিস্টে রয়েছে। এমনকি ইরানকেও ৬০০০ কোটি টাকার বাসমতী চাল রপ্তানি করেছিল ভারত। তাই সবকিছুর উপর লক্ষ রেখে “তেলের পরিবর্তে চাল” এই বিনিময় প্রথা ভারতের জন্য খুবই লাভজনক হতে চলেছে। এই পদক্ষেপে ভারতের রপ্তানি বাড়বে এবং একইসাথে ভারতকে ডলার কিনতে হবে না যার ফলে ভারতীয় মুদ্রাও শক্তিশালী হবে।

Be First to Comment

Leave a Reply