Press "Enter" to skip to content

৩৫০০ কিমি দূরে থাকা শত্রু ঘাঁটি ধ্বংস করার জন্য, এসপ্তাহে পরমাণু মিসাইলের পরীক্ষণ করতে চলেছে ভারত

বিশাখাপত্তনমঃ ডুবোজাহাজ থেকে শত্রু ঠিকানা ধ্বংস করার ক্ষমতাকে আরও বাড়ানোর জন্য ভারর শুক্রবার অন্ধ্র প্রদেশের সমুদ্র উপকূল থেকে জলের নীচ থেকে ৩ হাজার ৫০০ কিমি পর্যন্ত মারক ক্ষমতা সম্পন্ন চারটি পরামাণু মিসাইল পরীক্ষণ করার পরিকল্পনা বানাচ্ছে। এই মিসাইল প্রণালীকে DRDO আরিহান্ট শ্রেণীর ডুবোজাহাজের জন্য বিকশিত করছে। এই ডুবোজাহাজ গুলো ভারতের পরমাণু পরীক্ষণের প্রধান অবলম্বন হবে।

সরকারি সুত্র জানায়, ‘পরিকল্পনা অনুযায়ী, DRDO শুক্রবার বিশাখাপত্তনমের সমুদ্র উপকূলে জলের নীচে থেকে  K-4 পরমাণু মিসাইলের পরীক্ষণ করবে। ট্রায়ালের সময় DRDO এই মিসাইলের থেকে উৎপন্ন প্রণালী গুলোরও পরীক্ষণ করবে।” K-4 জলের নীচে থেকে চালানো মিসাইল, আর এগুলোকে আরও বিকশিত করা হচ্ছে। আরেকটি মিসাইল হল BO-5, যেটার মারক ক্ষমতা ৭০০ কিমি। এটা এখনো পর্যন্ত ঠিক হয়নি যে, DRDO এই মিসাইলের পরীক্ষণ কম না দীর্ঘ দূরত্ব পর্যন্ত করবে।

যদিও ভারত দ্বারা দীর্ঘ দূরত্বের মিসাইলের পরীক্ষণের জন্য সমুদ্র সতর্কতা আর নোটম আগেই জারি করা হয়েছে। K-4 মিসাইলের পরীক্ষণের পরিকল্পনা গত মাসেই করার কথা ছিল, কিন্তু পরে এটিকে স্থগিত করে দেওয়া হয়। আগামী সপ্তাহে DRDO অগ্নি-৩ আর ব্রহ্মস মিসাইলের পরীক্ষণ করবে বলে জানা যাচ্ছে।