Press "Enter" to skip to content

এই কারণের জন্যেই PAK এর রাডার সিস্টেম ভারতীয় বিমানের সিগন্যাল ধরতে ব্যার্থ হয়!

২৬ ফেব্রুয়ারি ভোর ৩.৩০ সময় পাকিস্থানে ঢুকে ভারতের বায়ুসেনা এয়ার স্ট্রাইক করে দিয়েছে। যাতে পাকিস্থানের ৪০০ জন আতঙ্কবাদী শেষ হয়েছে। ভারতের ১২ টি মিরাজ বিমান পাকিস্থানের ৩ টি এলাকায় আক্রমন করে ১৩ টি আতঙ্কবাদী লঞ্চপ্যাড ও ট্রেনিং ক্যাম্প ধ্বংস করে দিয়েছে। পুলবামা হামলার সাথে জড়িত জইস-ই-মহম্মদ এর আতঙ্কবাদীদের সমস্থ ট্রেনিং ক্যাম্প শেষ করে দেওয়া হয়েছে। জাইস-ই-মহম্মদ এর কন্ট্রোল রুম এবং হেড কোয়ার্টারকেও উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

যে সময় পাকিস্থান দেশ গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন ছিল সেই সময় ভারতের বিমান পাকিস্থানে ঢুকে স্ট্রাইক করে দিয়েছে। পাকিস্থান বুঝতেই পারিনি যে ভারতের ১২ টি মিরাজ বিমান পাকিস্থানে ঢুকে পড়েছে আর যখন বুঝতে পারে ততক্ষণে ভারতের কাজ শেষ হয়ে গেছে। এখন পাকিস্থানের মিডিয়া এই প্রশ্ন তুলেছে যে পাকিস্থানের রাডার কেন ভারতের বিমানের সিগন্যাল ধরতে পারেনি!ভারত পাকিস্থানের উপর যে এয়ার স্ট্রাইক করেছে তাতে পাকিস্থানে প্যানিক সৃষ্টি হয়েছে এবং পাকিস্থানের মিডিয়া সরকারকে ও সেনাকে চাপ দিতে শুরু করেছে।

PAK মিডিয়ার দাবি যে, ভারতের এতগুলো বিমান পাকিস্থানের ঢুকে গেল কিন্তু পাকিস্থানের সেনা কেন আগে থেকে সেটা বুঝতে পারলো না। পাকিস্থানের রাডার সিস্টেম কেন ভারতের বিমানকে ধরতে পারলো না। তবে কেন পাকিস্থানের সিস্টেম ভারতীয় বিমানের সিগন্যাল ধরতে পারেনি তার কারণ আপনাদের জানাবো। আসলে মিরাজ বিমানের একটা বিশেষ বিশেষত্ব এই যে এটা রাডার সিগন্যাল ব্লক করে দিতে পারে। যার জন্য পাকিস্থানের রাডার সিস্টেম ভারতের বিমানের টের পাইনি।

মিরাজ বিমান এক ধরণের তরঙ্গ ছাড়ে যার জন্য রাডার সিস্টেম বিমানের সিগন্যালকে ধরতে পারে না। মিরাজ বিমানের এই বিশেষ টেকনোলজির জন্য অপারেশন অনেক বড় সফলতা পেয়েছে। অবশ্য পরে পাকিস্থান বুঝতে পেরেও ভারতের বায়ু সেনাকে আটকাতে ব্যার্থ হয়। ভারতের বিমানের সামনে পাকিস্থানের f-16 নামলে সেটা মিরাজের ফায়ারিং এর সামনে টিকতে ব্যার্থ হয় এবং কোনোরকমে পলায়ন করে। অন্যদিকে পাকিস্থান চীন থেকে যে দুটি JF-17 পেয়েছিল তাও উড়িয়ে দেয় ভারত।

7 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.