অপারেশন অল আউট ভাঙলো রেকর্ড! এই বছর সেনার হাতে শেষ এত সংখক আতঙ্কবাদী।

পাকিস্থানে বসে থাকা ইসলামিক কট্টরপন্থীরা লাগাতার যুবকদের ব্রেইন ওয়াশ করে জম্মুকাশ্মীরের ঘাঁটিতে প্রেরণ করেছে। অন্যদিকে ভারতীয় সেনাও লাগাতার কট্টরপন্থী জঙ্গিদের শেষ করে রেকর্ড গড়তে শুরু করেছে। প্রাপ্ত খবর খবর অনুযায়ী এই বছর অর্থাৎ ২০১৮ তে ভারতীয় সেনা অপেরাশন অল আউটে রেকর্ড সংখ্যক জঙ্গিকে নিহত করেছে। এখনো অবধি BSF ও সেনা মিলে ২২৬ আতঙ্কবাদীকে শেষ করে দিয়েছে। এখনো সুরক্ষাকর্মীদের হাতে পুরো ডিসেম্বর মাস রয়েছে। এই মাসের মধ্যে সেনা মৃত সন্ত্রাসবাদীর সংখ্যা ২৫০ পৌঁছানোর লক্ষ্যে রয়েছে।

2017 সালে মোট মৃত সন্ত্রসবাদীদের সংখ্যা 213 ছিল।জানিয়ে দি, গত 72 ঘণ্টার মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনী প্রায় 20 জঙ্গিকে নিহত করেছে। তবে, নিরাপত্তা বাহিনী এই অপারেশনে তাদের প্রাণ হারিয়েছে। একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, 25 নভেম্বর, 2018 সাল পর্যন্ত নিরাপত্তা বাহিনীর 56 জন জওয়ান সৈন্য শহীদ হয়েছেন। গত বছর বিভিন্ন অপারেশনের সময় 59 জন জওয়ান শহীদ হন।জানা যায় এই বছর পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই এবং সন্ত্রাসী সংগঠনগুলি কাশ্মিরের 178 টি স্থানীয় যুবককে জঘন্য করেছে এবং তাদেরকে জঙ্গি উপজাতীয় গোষ্ঠীতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

গত বছর 128 টি স্থানীয় যুবককে সন্ত্রাসী সংগঠনে ভর্তি করা হয়েছিল। জানা গেছে যে পাকিস্তানে অক্টোবরে সর্বোচ্চ 33 টি স্থানীয় যুবক সন্ত্রাসী সংগঠনে যোগ দিয়েছে।যদিও 2017 সালে সংখ্যা ছিল 10।পাকিস্তানে অধিষ্ঠিত কাশ্মিরে বসে সন্ত্রাসীরা সোশ্যাল মিডিয়া ও অন্যান্য উপায়ে কাশ্মিরের তরুণদেরকে সন্ত্রাসের আগুনে ধাক্কা দেওয়ার চেষ্টা করছে এবং তাদেরকে নির্যাতন করার চেষ্টা করছে।যদিও নিরাপত্তা নিরাপত্তা সংস্থাগুলি তা পূরণ হতে দেয়নি।

সন্ত্রাসী কমান্ডারদের জন্য স্থানীয় তরুণদের সন্ত্রাসের পথ বেছে নিতে হয়েছে। কাশ্মীর উপত্যকায় নিরাপত্তা বাহিনীর কর্মকাণ্ডে মারা যাওয়া যুবকদের সন্ত্রাসী কর্মসূচির প্রচারণা হুমকির মুখে পড়ে। এই প্রচারণা লস্কর, জাইশ-ই-মোহাম্মদ, হিজবুল মুজাহিদিন ও আল বদরের কমান্ডার চালাচ্ছে। সূত্রের খবর, এবার সরকার ও সেনা মিলিত ভাবে পাকিস্থানোর ভেতরে বসে থাকা জঙ্গিদের মূল মাথাকে বিনাশ করার ব্যাপারে পরিকল্পনা চালাচ্ছে।

Leave a Reply

you're currently offline

Open

Close