Press "Enter" to skip to content

আলীগড় ইউনিভার্সিটির PHD স্কলার আতঙ্কবাদী মান্নান বানীকে 72 হুরের কাছে পাঠালো ভারতীয় সেনা। Bangla India Rag

দুর্গাপূজা ও নবরাত্রির সময় চলছে তাই দেশের উপর কৃপা হবে এটা তো স্বাভাবিক। জানিয়ে দি, আলীগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটির PHD ছাত্র মান্নান বানীকে ভারতীয় সেনা শেষ করে দিয়েছে। মান্নান বাণী ও তার ২ সাথীকে জম্মুকাশমীরের কুলাউযারাতে ভারতীয় সেনা শেষ করে দিয়েছে। ৩ জন ইসলামিক আতঙ্কবাদী লুকিয়ে থাকার খবর পেয়েছিল। যারপর সেনা এলাকা জুড়ে এনকাউন্টার অপেরাশন চালিয়েছিল। বহুক্ষণ ধরে এনকাউন্টার চলার পর সেনা বিনা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েই ৩ জন আতঙ্কবাদীকে মেরে ফেলে। ৭২ হুরের লোভে আতঙ্ক ছড়ানো এই কট্টরপন্থীদের শেষ করে দিয়েছে সেনা।

এই আতঙ্কবাদীর কাশ্মীরের আজাদীর জন্য সংগ্রাম করছিল কিন্তু সেনা আতঙ্কবাদীদের চিরদিনের জন্য আজাদী দিয়ে দিয়েছে। সেনা যেইমাত্র এনকাউন্টার শুরু করেছিল সেইমাত্র প্রায় ৫০০ কাশ্মীরি মুসলিম ঘর থেকে বেরিয়ে এসে সেনার উপর পাথরবাজি শুরু করে দেয়। কিন্তু সেনা আগেই থেকেই এই পরিস্থিতির জন্য তৈরি ছিল। সেনা পাথরবাজ কট্টরপন্থীদের উপর কাবু করে নেয় এবং শেষমেষ ৩ ইসলামিক আতঙ্কবাদীকে শেষ করে দেয়।

এই ৩ জনের মধ্যে মান্নান বাণী সামিল ছিল। মান্নান বাণী কাশ্মীরের বাসিন্দা যে আলীগড় ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনা করত। এই মান্নান বাণী নামক ছাত্র ইউনিভার্সিটিতে পড়ার সাথে সাথে হিজবুল মুজাহিদ্দীন এ যোগ দিয়েছিলেন। এই মান্নান বানীর অনেক সমর্থক JNU ও AMU তে রয়েছে । ভারতীয় সেনা আতঙ্কবাদীদের শেষ করার কাজ লাগাতার করছে। যা হিজবুলবাদী ও কট্টরপন্থীদের জন্য খারাপ সময়ের সূচনা করেছে।

এলাকায় এখনো ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে রাখা হয়েছে কারণ পাথরবাজ ও কট্টরপন্থীরা যেকোনো সময় আতঙ্ক ছড়াতে পারে। দেশে যখন পুজোর ও নবরাত্রির আনন্দে মেতে উঠেছে তখন যাতে এই আনন্দে কোনো কট্টরপন্থী বাধা না দিতে পারে, দেশের নাগরিকের ক্ষতি করতে না পারে তার জন্য বুক চওড়া করে BSF ও ভারতীয় সেনা তৈরি রয়েছে।