বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট! শক্তিশালীর দিক থেকে ভারতীয় সেনার স্থান চমকে দেওয়ার মতো।

একবার এক বিশিষ্ট নেতা বলেছিলেন যদি আমেরিকা জয় করতে হয় তাহলে ভারতীয় সৈন্যের প্রয়োজন। অর্থাৎ ভারতের মতো সহসিক সৈনিক পুরো বিশ্বের পাওয়া অসম্ভব। সাহসিকতার দিক থেকে ভারতীয় সেনা বরাবরই প্রথম স্থানে রয়েছে। কিন্তু রাজনৈতিক কারণে ভারতীয় সেনা অস্ত্রশস্ত্র ও টেকনোলজির দিক থেকে অনেকটা পিছিয়ে ছিল। তবে এখন মোদী যুগে ভারতীয় সেনা দারুণভাবে শক্তিশালী হতে শুরু করেছে। মোদী সরকার লাগাতার সামরিক দিক থেকে ভারতকে শক্তিশালী করে চলেছে। ২০১৮ সালে ভারত কোন দিক থেকে কেমন হারে বিকাশ করেছে তার উপর বেশকয়েকটি রিপোর্ট বের হয়েছে। ভারতের স্বাস্থ্য ব্যাবস্থা, GDP, ইকোনমি, শিক্ষা, সামরিক বাহিনীর শক্তি, নেতাদের প্রভাব এই সমস্থ কিছুর উপর বিগত ২০১৮ সালের রিপোর্ট বের হয়েছে। এমনকি ভারতীয় পিতা মাতারা তাদের বাচ্চাদের উপর কতটা সময় দেন তা উপরেও রিপোর্ট বের হয়েছে। তবে এই সমস্ত রিপোর্টের মধ্যে ভারতের সামরিক বাহিনীর উপর যে রিপোর্ট সামনে এসেছে তা পুরো দেশবাসীকে গর্ব করেছে।

আসলে স্পেকটেটর্স ইনডেক্স এর রিপোর্ট অনুযায়ী ভারতীয় সেনা ২০১৮ সালে পুরো বিশ্বে শীর্ষ তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। রিপোর্টে ভারতীয় সেনাকে চতুর্থ শক্তিশালী সেনা হিসেবে গণ্য করা হয়েছে। ভারতের প্রতিবেশী কট্টরপন্থী দেশ পাকিস্থান ভারতের ধরে কাছে পর্যন্ত আসতে পারেনি। ভারতীয় সেনা ইংল্যান্ডের সেনাকেও টপকে দিয়েছে।

তালিকায় আমেরিকা প্রথম স্থান দখল করেছে, রাশিয়া দ্বিতীয় এবং চীন তৃতীয় স্থান দখল করেছে। রিপোর্টে ফ্রান্স পঞ্চম স্থান করেছে। উল্লেখ্য এই যে ভারতীয় নৌসেনাও তালিকায় প্রশংসাযোগ্য স্থান দখল করেছে। নর্থ কোরিয়া, সাউথ কোরিয়া, জার্মানি, ইতালি যথাক্রমে সপ্তম, অষ্টম, নবম ও দশম স্থান দখল করেছে।

মোদী ক্ষমতায় আসার পর থেকে ভারতীয় সেনাকে আরো মুজবুত করার জন্য এবং সেনার হাতে স্বদেশী তৈরি অস্ত্র দেওয়ার উপর লাগাতার কাজ করেছিল। কংগ্রেস আমলে ভারতীয় সেনার কাছে যে বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট কল্পনা মাত্র ছিল মোদী আমলে সেই বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট বাস্তবে পরিণত হয়েছে। শুধু এই নয়, এমন অনেক চুক্তি যা কংগ্রেস আমলে দুর্নীতির কারণে আটকে ছিল তার সবকটি পাশ করিয়ে দিয়েছে মোদী সরকার।

Leave a Reply

you're currently offline

Open

Close