Press "Enter" to skip to content

মোদী সরকারের এই পদক্ষেপে ভারতীয় সেনা এমন হাতিয়ার পেলো, যা দেখে চিন্তিত পাকিস্থান ও চীন।

নরেন্দ্র মোদী যখন থেকে প্রধানমন্ত্রী পদে সোপর্দ নিয়েছেন তখন থেকে উনি দেশকে আর্থিক ও সামরিক দিক থেকে শক্তিশালী করার জন্য লেগে পড়েছেন। বৰ্তমানে ভারতীয় সামরিক বাহিনী একের পর এক নতুন প্রযুক্তি এনে সুরক্ষার পরিকাঠামো উন্নত করে চলেছে। তবে সম্প্রতি মোদী সরকার আরো এক বড়ো পদক্ষেপ নিয়েছে যা চীন ও পাকিস্থানের মতো দেশগুলিকে সমস্যায় ফেলবে। প্রধানমন্ত্রী বিদেশ যাত্রা করে ওই দেশগুলিত মাধ্যমে ভারতের উন্নতি করার প্রয়াস করেন। প্রধানমন্ত্রীর এই প্রয়াসের ফলে ভারতীয় সামরিক বাহিনীতে সুইজারল্যান্ড, কানাডা,ইজরায়েল,রুশ সহ বেশ কিছু দেশের আধুনিক হাতিয়ার সামিল হতে চলেছে যার জন্য চাপে রয়েছে পাকিস্থান ও চীন।

আসলে চীন ও পাকিস্থান প্রায় সময় বর্ডার পেরিয়ে ভারতে ঢোকার চেষ্টা করে। কিন্তু এই আধুনিক হাতিয়ার ভারতের কাছে আসার পর নিস্তব্ধ হয়ে যাবে শত্রু দেশগুলি।সম্প্রতি যুদ্ধক্ষেত্র নজরদরি রাডার, অবসার্ভাশন সিস্টেম লোরস লাং রেঞ্জ রিয়াককেশন, মানব রোহিত বিমান ইউইভি নিযুক্ত করা হয়েছে। তারপরেও যদি কেউ ভারতে প্রবেশ করার চেষ্টা করে তাহলে থার্মাল ইমেজার লাগানো হয়েছে যা তাদের চেষ্টাকে বিফল করবে।তা সত্ত্বেও লুকিয়ে কোনোক্রমে লুকিয়ে ভারতে প্রবেশ করে আক্রমণ করার চেষ্টা করে তাহলে সেনার কাছে সাউথ আফ্রিকায় তৈরি আন্টি মাটিরিয়াল রাইফেল মুজুত করা হয়েছে।

যা থেকে যা থেকে শত্রুদের রক্ষা পাওয়া খুবই কঠিন ব্যাপার। জম্মুকাশমীরে বহুবার আতঙ্কিরা মাটির নিচে এআইডি লুকিয়ে দেয় যে খুঁজে পাওয়া খুব মুশকিল হয়ে পড়ে এর জন্য ভারতীয় সেনা ব্রিটেনে তৈরি একটা বিশেষ ডিটেক্টর দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও যদি মাটির সাড়ে ৩ ফুট নীচে কিছু লুকানো থাকে তাহলে সেনার এইয়েড রিমোর্ট ভীল বের খুব সহজেই বের করতে পারবে।এই আধুনিক যন্ত্রে এস্কার কিট, টেলিস্কোপিক বোমা, হ্যান্ড কন্ট্রোলার ও শর্টগান ব্রেকার লাগানো হয়েছে।

এছাড়াও বোমার বিস্ফোরণ থেকে বাঁচবার জন্য কানাডায় তৈরি ইওডি সেভেন বি বোম সুট দেওয়া হয়েছে যার ওজন ৪০ কিলোগ্রাম। এটি ৪ ফুট দূরে ৩০০ গ্রাম বিস্ফোরণ থেকে সেনাকে বাঁচাতে পারবে এবং বিস্ফোরণের পর ১৫০০ কিমি/ ঘন্টায় আসা পাথর মাটির বা অন্যকিছুর টুকরোর আক্রমণ থেকেও রক্ষা করতে সক্ষম হবে। জম্মুকাশ্মীরে যেহেতু বেশি আতঙ্কবাদী কার্যকলাপ তাই ওই স্থানেই বেশি হাতিয়ার নিয়োগ করেছে ভারতীয় সেনা।