“হিন্দ মহাসাগরে চীনের থেকে বেশি শক্তিশালী ভারত”: সুনীল লাম্বা, নৌসেনা প্রমুখ।

১০ বছর আগে সামুদ্রিক পথে আসা আতঙ্কবাদীরা মুম্বাই হামলা সম্পন্ন করেছিল, কিন্তু তারপর থেকে লাগাতার ভারত সামুদ্রিক শক্তি বৃদ্ধি করে ফেলেছে। এমনটাই বলেছেন নৌসেনা প্রমুখ এডমিরাল সুনীল লাম্বা মহাশয়ের। সোমবার দিন সুনীল লাম্বা বলেন, ভারতীয় নৌসেনা তটীয় রক্ষার জন্য প্রতিবদ্ধ এবং ভারতের প্রথম পারমাণবিক সাবমেরিন INS আরিহান্ট এর পেট্রোলিং শুরু হওয়ার পরই আমাদের রক্ষা প্রণালী আরো শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। নৌসেনা দিবসের দিন এক অনুষ্ঠানের সম্বোধন করে এডমিরাল সুনীল লাম্বা বলেন, ২৬/১১ মুম্বাই হামলা ঘটনার পর এখন ভারত সুরক্ষার দিক থেকে অনেক বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। নৌসেনা নিজের হেলিকপ্টারের শক্তি বৃদ্ধি করেছে এবং ২৫ টি মাল্টিরোল হেলিকপ্টার কেনার প্রস্তুতি চলছে।

চীনের লাগাতার বৃদ্ধি পাওয়া শক্তির উপর মন্তব্য করে লাম্বা বলেন, হিন্দ মহাসাগরে চীনের ৬ থেকে ৭ টি যুদ্ধপত রয়েছে। উনি বলেন হিন্দ মহাসাগরে ভারত চীনের তুলনায় মজবুত অবস্থায় রয়েছে। এই ভাবে শক্তি বৃদ্ধি পেলে ২০৫০ নাগাদ ভারত নৌসেনার দিক থেকে সুপার পাওয়ার হয়ে উঠবে যাদের কাছে ২০০ টি জাহাজ ও ৫০০ এয়ারক্রাফট থাকবে। পাকিস্থানের কথা আলোচনা করে লাম্বা বলেন, পাকিস্থানের থেকে ভারত বহু শক্তিশালী অবস্থায় রয়েছে। ভারতের কাছে ভারত মহাসাগরের উপর শক্তি নিয়ন্ত্রণ করার শক্তি রয়েছে।

লাম্বা আরো বলেন, মালদ্বীপের অংশ নিয়েও ভারত নিশ্চিন্ত অবস্থায় রয়েছে কারণ মালদ্বীপের সরকার আমাদের বন্ধু ও সহায়ক। আমরা ভবিষতে মালদ্বীপের সাথে যুদ্ধ অভ্যাস করবো। পাকিস্থান দ্বারা গেপ্তার হওয়া কুলভূষণ যাদবের উপর মন্তব্য করে উনি বলেন, আমরা লাগাতার উনার পরিবারের সম্পর্কে রয়েছি এবং যথাসম্ভব সাহায্য করার চেষ্টা চালাচ্ছি।

জানিয়ে দি, বিশ্বের জন্য প্রধান সমস্যা তৈরি হওয়া সামুদ্রিক ডাকাতদের উপর লাগাম লাগানোর জন্য অনেক গুলো অপেরাশন চালানো হয়েছে। বিগত বছরগুলোতে ৪৪ টি ডাকাতির চেষ্টাকে ব্যার্থ করে দেওয়া হয়েছে যেখানে ১২০ জন ডাকাতকে গেপ্তার করা হয়েছে।

Leave a Reply

Open

Close