Press "Enter" to skip to content

ভারতীয় গবেষকদের বড়ো জয় ! এবার সূর্যের আলো এবং জল থেকেই ভারত তৈরি করবে জ্বালানি।

এই বিশ্বে জ্বালানি সমস্যার সম্মুখীন লেগেই রয়েছে।দূষণের ক্ষেত্রে জ্বালানির ভূমিকা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।অপরদিকে চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় জ্বালানির দাম ও অনেকটাই বেড়ে গেছে। জ্বালানির জন্য মাত্র কতগুলি দেশের উপর নির্ভরশীল ভারতের মতো কয়েকটি দেশ।এই সব সমস্যার সমাধান নিয়ে এলো ভারতের একদল ছাত্রছাত্রী।আইআইটি যোধপুর এর ছাত্রছাত্রীদের গবেষণায় পরিণত হলো “ভবিষ্যতের জ্বালানি”।যে প্রক্রিয়ায় উদ্ভিদের সালোকসংশ্লেষ হয় ঠিক তার উল্টো পদ্ধতিতে উৎপন্ন হবে জ্বালানি।স্টুডেন্ট গবেষকরা ঠিক এমনটাই জানিয়েছেন।এই প্রক্রিয়ায় জল থেকে হাইড্রোজেন ও অক্সিজেন আলাদা করা হবে তার জন্য প্রয়োজন প্রচুর পরিমাণে সূর্যের আলো।

সাংবাদিক সূত্রের খবর,লান্থানাইড নামে একটি রাসায়নিক অনুঘটকের সন্ধান মিলেছে দের কাছে।এই অনুঘটকের কাজ হলো জল থেকে অক্সিজেনকে আলাদা করে বিশুদ্ধ হাইড্রোজেন কে এনে দেওয়া।এবং সেটাই জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।বর্তমানে হাইড্রোজেন উৎপন্ন করার একটি খোরচসাপেক্ষ প্রক্রিয়া হলো মিথেন ব্যাবহার করে,এটির জন্য ২০০০-৩০০০ ডিগ্রি তাপমাত্রার প্রয়োজন।

অধ্যাপক রাকেশ কুমার শর্মার বক্তব্য,এই প্রথম এত কম খরচে জ্বালানি উৎপণ্ন করতে পেরেছি আমরা।এই প্রক্রিয়া যদি আমরা বাস্তবে কাজে লাগাতে পারি তবে জ্বালানির জন্য অন্য দেশের উপর নির্ভরশীল কমে যাবে প্রায় ৩০ শতাংশ।আপাতত এই প্রক্রিয়া কার্যকরের জন্য আবেদন জানিয়েছেন যোধপুর আইআইটি। এই খবর মোদী সরকারের কাছে অবধি পৌঁছে গেছে বলে জানা যাচ্ছে।

জানিয়ে দি, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেশের নামি কলেজ ও ইউনিভার্সিটিগুলোতে গবেষণার উপর জোর দেওয়ার কথা বলেছিলেন। যার উপর কাজ করে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা বেশকিছু বড়ো পদক্ষেপও নিয়েছিলেন এখন সেই কার্যের ফল হাতে নাতে আসছে বলেই ধরা হচ্ছে। এমনিতে ভারতীয় সমাজকে বিজ্ঞানের প্রতি সবথেকে উৎসুক সমাজ বলা হলেও স্বাধীনতার পর থেকে দেশে সুযোগেরর অভাবে গবেষণায় অনেকটা পিছিয়ে পড়েছিল। তবে এখন মোদী সরকারের আমলে আরো একবার গবেষণা গুরুত্ব পেতে শুরু হয়েছে।