Press "Enter" to skip to content

ভারতের সাথে শত্রুতার ফল ভুগতে হলো পাকিস্তানকে! বিগত চার বছরে সবচেয়ে বেশি মূল্যবৃদ্ধি ভিখারী দেশ পাকিস্তানে

ভারতের সাথে শত্রুতা করা পাকিস্তানের চরম বিপদ ডেকে আনল। পুলওয়ামা হালমার পর ভারত কড়া সিদ্ধান্ত নিলে পাকিস্তানে বৃদ্ধির দর ৮.২ শতাংশ হয়ে গেছে। পাকিস্তানি পত্রিকা ডন পাকিস্তানের পরিসংখ্যান ব্যুরো এর রিপোর্ট অনুসারে জানায় যে, ফেব্রুয়ারি মাসে ১৫০.০৪, লঙ্কা ৩৭.৪৩, ডালিম ১১.২৪ শতাংশ দাম বৃদ্ধি পেয়েছে।

ভারত থেকে পাকিস্তানে প্রচুর পরিমাণে টমেটো রপ্তানি হয়। মোদী সরকার দ্বারা পাকিস্তানের তরফ থেকে মোস্ট ফেভারিট নেশন এর মর্জাদা কেড়ে নেওয়ার পর পাকিস্তানে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের জন্য হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে।

পাকিস্তানের দ্রব্যমুল্য বৃদ্ধির প্রভাব তাঁদের আর্থিক নীতিতেও পরেছে। স্টেট ব্যাংক অফ পাকিস্তান টাকার দাম কমা এবং কাঁচা তেলের দাম বৃদ্ধি দেখে অনেক পরিবর্তন এনেছে। গত বছরের জানুয়ারিতে ব্যাংক ঋণের হার 4.5 শতাংশ বাড়িয়ে দিয়েছে।

আরও পড়ুনঃ ব্রেকিং খবর: বালাকোট এয়ার স্ট্রাইকে মারা গেছে মাসুদ আজহার? পাকিস্থান করেছে মাসুদের অসুস্থতার মিথ্যা বাহানা

যদিও পরিসংখ্যান ব্যুরো এর কারণ হিসেবে পাকিস্তানি টাকার মূল্য পতনকে দেখিয়েছে। ডন এর অনুসারে, পাকিস্তানে গত অক্টোবর মাসে বিগত চার বছরের সবথেকে বেশি ৬.৭৮ শতাংশ হয়েছে। পাকিস্তান সরকার আর্থিক বছর ২০১৮-১৯ এ ৬ শতাংশ বার্ষিক মুদ্রাস্ফীতির অনুমান লাগিয়েছে। কিন্তু ফেব্রুয়ারি মাসেই সরকারের অনুমান ভেঙে যায়। গত বছর পাকিস্তানের গড় মুদ্রাস্ফীতির হার ৩.৯২ শতাংশ এবং তাঁর আগের বছ ৪.১৬ শতাংশ ছিল।

আরও পড়ুনঃ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রশংসা করে এয়ার স্ট্রাইক নিয়ে প্রশ্ন তুললেন কংগ্রেসের প্রবীণ নেতা তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী

পাকিস্তানের পরিসংখ্যান ব্যুরো ৪০ শহর এবং ৭৬ টি বাজারের ৪৮৭ টি দ্রব্যের খুচরা দামকে একত্রিত করে মুদ্রাস্ফীতির গণনা করে।

6 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.