Press "Enter" to skip to content

কুলভূষণ যাদব মামলায় পাকিস্থানের জন্য খারাপ খবর! আন্তর্জাতিক আদালতে জয় হতে পারে ভারতের।

কুলভূষণ মামলায় বড় রকমের সমস্যায় পড়তে চলেছে পাকিস্থান। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, ২০১৯ এর ফেব্রুয়ারি মাসে আন্তর্জাতিক কোর্টে কুলভূষণ মামলার বিচার হতে চলেছে। ভারত ভ্ৰমনে আসা ইরানের বিদেশমন্ত্রী কুলভূষণ ইস্যুতে একটা স্পষ্ট ইঙ্গিত দিয়েছেন। ই রানের বিদেশমন্ত্রী জানিয়েছেন যে কুলভূষণ ইস্যুতে তারা ভারতের সমর্থনে থাকবে। ২০১৬ সালে পাকিস্থান কুলভূষণকে গ্রেপ্তার করেছিল। গোয়েন্দা সন্দেহ করে কুলভূষণকে গ্রেপ্তার করেছিল পাকিস্থান। পাকিস্থান এর আদালত উপযুক্ত প্রমান ছাড়াই কুলভূষণকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছিল। ইরানের বিদেশমন্ত্রী বলেন ভারত আমাদের মিত্র দেশ এবং একইসাথে এই ক্ষেতে ভারত সত্যের পথে রয়েছে তাই আমরা ভারতকেই সমর্থন করবো। ইন্ডিয়া টুডে এর এক সাংবাদিক এর কাছে এই মন্তব্য করেছেন ইরানের বিদেশমন্ত্রী।

কুলভূষণ যাদব ভারতীয় নৌ সেনার পূর্ব আধিকারিক যিনি ২০১৬ সালে ইরানের সীমার কাছাকাছি এলাকা থেকে পাকিস্থানের গ্রেপ্তার হন। পাকিস্থান কুলভূষণ যাদবকে গোয়েন্দা দাবি করে গ্রেপ্তার করেছিল। যদিও কুলভূষণ সেখানে ব্যাবসায়ীক ব্যাপারে গিয়েছিলেন। পাকিস্থান তাদের আদালতে বিনা উপযুক্ত প্রমানেই কুলভূষণকে দোষী প্রমান করে ফাঁসির সাজা শুনিয়েছিল।

এরপর ভারত এই ইস্যুতে আন্তর্জাতিক আদালতে আর্জি জানায় এবং উপযুক্ত ন্যায় এর দাবি করে। আন্তর্জাতিক আদালত এই ইস্যুতে কুলভূষণ এর ফাঁসির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে রেখেছে। এর আগে কুলভূষণ এর মামলায় আন্তর্জাতিক আদালতে পাকিস্থান নিজের পায়ে নিজেই কুড়ুল মেরেছিল।

আর এখন আবার কিছুদিন পর মামলার তারিখ সামনে এসেছে। এবার পাকিস্থানের বিপক্ষে সরাসরি ইরান মুখ খুলেছে। ইরানের চাবাহার বন্দর নিয়ে ভারত ও ইরানের সম্পর্ক এমনিতে উন্নত হয়েছে। এরপর ইরান কুলভূষণ মামলার ইস্যুতে পাকিস্থানের জন্য খারাপ সংবাদ শুনিয়ে দিয়েছে। যা নিয়ে বড়সড়ো চাপে পড়েছে পাকিস্থান। এই মামলায় পাকিস্থান হেরে গেলে একদিকে যেমন ভারতের দাবির প্রভাব বৃদ্ধি পাবে তেমনি পাকিস্থানের ন্যায় ব্যাবস্থা নিয়েও আন্তর্জাতিক মহলে প্রশ্ন উঠবে যা কোনোভাবেই একটা দেশের জন্য ভালো সংকেত নয়। আন্তর্জাতিক স্তরে পাকিস্থানকে মিথ্যা প্রমান করতে পারলে ভারত বহুক্ষেত্রে পাকিস্থানের উপর চাপ সৃষ্টি করতে পারবে।

Be First to Comment

Leave a Reply