Press "Enter" to skip to content

কেজরিওয়ালের মন্ত্ৰীর ঘরে ইনকাম ট্যাক্স রেডের পর মিললো, এত টাকা যে গুনতে গুনতে ক্লান্ত আধিকারিকরা।

দেশের রাজনীতিতে সবচেয়ে দুর্নিতিগ্রস্ত পার্টি হল কংগ্রেস। তারা ভারতবর্ষে ৭০ বছর শাসনকাজ চালিয়ে ভারতকে সব দিক থেকে লুটেছে। এবং কংগ্রেস নেতামন্ত্রীরা নিজেদের ব্যাংক ব্যালেন্স বাড়িয়েছে। দেশের সাধারণ মানুষ এতদিনে শুধু এটা ভেবেই নিজেদের ক্ষমা করতে পারেন না যে, কংগ্রেসের মত একটি দুর্নিতিগ্রস্ত দল কে এতদিন ধরে দেশের শাসন ক্ষমতায় রেখেছিল। কিন্তু এইদেশে এই মুহুত্তে দুর্নিতির দিক কংগ্রেসকেও পিছনে ফেলে দিয়েছে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ । এই প্রাথমিক ভাবে পার্টি করার সময় থেকে অত্যন্ত দুর্নিতিগ্রস্ত বলে পরিচিত ছিলেন। এবার কৌলাশ গাহালত নামে কেজরিবালের মন্ত্রী সভার এক বিশিষ্ট মন্ত্রীর বিরুদ্ধে উঠল মারাত্মক অভিযোগ। এইদিন হঠাৎ এর আধিকারিকরা কৌলাশ গাহালত বাড়ি চলে যায়। তারা সেখানে গিয়ে তাকে হাতে না হাতে ধরে ফেলে এবং তার বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় ৩৫ লক্ষ টাকা নগদ। এই টাকার কোনো সঠিক হিসাব দিতে পারে নি কৌলাশ গাহালত।

এই কৌলাশ গাহালত শুধু আম আদমি পার্টির একজন নেতাই নন তিনি দিল্লি মন্ত্রী সভার বিশিষ্ট মন্ত্রী। অনেক দিন ধরেই এনার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল তাই এবার আগে থেকে কোনো খবর না দিয়েই সরাসরি তার বাড়ীতে গিয়ে তল্লাশি শুরু করে দেন ইনকাম ট্যাক্স এর আধিকারিকরা। যারপর সেখান থেকে উদ্ধার হয় ১০০০ কোটি টাকার বেশি কালো টাকা। বেশ কিছু বেনামি সম্পত্তি।

এমনিতে এই কৌলাশ গাহালত নিজেকে একজন ভালো মানুষ ও সমাজসেবক হিসাবেই দাবি করেন দিল্লিবাসীর কাছে। কিন্তু উনার বাড়িতে ইনকাম ট্যাক্স এর আধিকারিকরা ৩ দিন তল্লাশি চালিয়ে যে রিপোর্ট দিলেন সেটা জানলে আপনিও চমকে উঠবেন। এনার বাড়ী থেকে পাওয়া গিয়েছে ১২০ কোটি টাকার ট্যাক্স ফাঁকি দেওয়ার কাগজপত্র, এছাড়া দুবাইতে রয়েছে ১০০ কোটি টাকার বেশি খরচ হওয়া বাড়ী। এছাড়াও উনার বাড়ি থেকে পাওয়া গিয়েছে বহু বেনামি কাগজপত্র, গাড়ির কাগজ যেগুলির একটারও হিসাব তিনি দিয়ে পারেন নি।

এছাড়া ইনি অনেক ভুয়ো কম্পানিকে লোন পাইয়ে দিয়েছেন যেখান থেকে অনেক কমিশন খেয়েছেন বলেও জানা যাচ্ছে। তিনি ধরা পরার ভয়ে নিজের বেশ কিছু জমির কাগজপত্র তার সম্বন্ধীর নামে করে রেখেছেন। এছাড়াও ইনার রয়েছে জাল ঔষুধের ব্যাবসা, দেশের অনেক বড়ো বড়ো শহরে ইনি বাড়ি করে রেখেছেন। এই কিছু দিনের মন্ত্রী হওয়াতেই ইনি এত কিছু করে ফেলেছেন শুধুমাত্র দিল্লিবাসীকে ঠকিয়ে তাদের ট্যাক্স এর টাকায়। এটা সকলের জানা ছিল যে এত কিছু দোষ করার সত্ত্বেও যদি কেজরিবাল কে এই নিয়ে কোনো প্রশ্ন করা হয় তাহলে উনি স্বীকার করবেন না।

আসলে উনি স্বীকার না করলেও এতদিনে দিল্লিবাসী সব কিছু বুঝে গিয়েছেন। আসলে ব্যাপারটা হল দিল্লি এমন একটা রাজ্য যেখানে অনেক পরিমানে টাকা আসে শুধুমাত্র সাধারণ মানুষের ট্যাক্স থেকে আর মুখ্যমন্ত্রী এই সুযোগটি কাজে লাগিয়েছেন। দিল্লিতে যত পরিমান টাকা লুটে ননেওয়া হয়, সবেতেই কেজরিওয়ালের ভাগ থাকে। কেজরিওয়াল ভেটিক্যান এর এজেন্ট(বহুদিন আগেই হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহন করেছেন) এর সাথে সাথে একজন বড়ো দুর্নীতিগ্রস্থ বলেও বহু অভিযোগ উনার উপর রয়েছে।

আরো পড়ুন – Bengali News
#অগ্নিপুত্র