Press "Enter" to skip to content

পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের থেকে শিক্ষা মন্ত্রী পদ কেড়ে নেওয়ার দাবি জানিয়ে, রাজ্য সরকারকে জোর ধাক্কা দিল জাতীয়তাবাদী যুব পরিষদ।

কিছু দিন আগে ইসলামপুরে এক ছাত্রকে গুলি করে মারা হয় বাংলা ভাষার শিক্ষক চাওয়ার অপরাধে। তার প্রতিবাদে রাজ্যজুড়ে সরব হন সাধারণ মানুষ। রাজ্য বিজেপি এর প্রতিবাদে গতকাল ১২ ঘণ্টার বনধ ডাকেন। শুধু তাই নয় জাতীয়তাবাদী যুব পরিষদ এই ঘটনা প্রসঙ্গে প্রতিবাদী সাংবাদিক সম্মেলন করেন। সেই সম্মেলনে এক বিস্ফোরক দাবি উঠে এল। তাদের তরফে দাবি করা হয় “শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় হল একজন ফেল করা ডক্টরেট৷”

সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে এই কথা বলেন সংবাদপত্রের বিভাগীয় লেখক পুলক নারায়ণ ধর। তিনি বলেন যে, শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় হল একজন ‘ ব্যার্থ ব্যক্তি’। সেই জন্যই তিনি বারবার তর্ক বিতর্ক, বাদানুবাদ করে থাকেন উপাচার্যদের সাথে। তিনি আরও বলেন যে, শিক্ষানৈতিক দিক থেকে বিচার করলে তার এই শিক্ষামন্ত্রী পদ কেড়ে নেওয়া উচিৎ। মুখ্যমন্ত্রী তাকে অন্য যেকোনো পদে মন্ত্রী করুক সেটাই উনার জন্য ভালো হবে। কিন্তু শিক্ষামন্ত্রী পদটি তার জন্য নয়। আমি একজন শিক্ষক হয়েই বলছি ফেল করে ডক্টরেট হওয়া ব্যাক্তির শিক্ষামন্ত্রী পদে থাকার কোনো যোগ্যতা নেই। তার নিজের থেকেই উচিৎ পদত্যাগ করা। আর সেটা যদি উনি না করেন তাহলে তার সেই পদ কেড়ে নেওয়া উচিৎ।

টাকা লেনদেন প্রসঙ্গও উঠে আসে এই সাংবাদিক সম্মেলনে। এছাড়াও আরও বেশ কয়েকটি দাবি পেশ করা হয় এই সাংবাদিক সম্মেলনে।
সেগুলি হল:

১) পূর্ণ সি বি আই তদন্ত চাই ইসলামপুরে ছাত্র খুনের ঘটনায়। ২) যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিয়ে সাহায্যদান করতে হবে হবে ইসলামপুরে নিহতদের পরিবারবর্গকে। ৩)দোষীদের খুব শ্রীঘ্রয় চিহ্নিতকরণ করে  তাদেরকে উপযুক্ত শাস্তি দিতে হবে। ৪)শিক্ষাঙ্গনে ভবিষ্যৎ এ যাতে পুলিশ প্রবেশ ও বলপ্রয়োগ না করা হয় সেই ব্যাপারে সরকারকে স্থায়ী সমাধান দিতে হবে।  ৫) রাজ্যে যে হাজার হাজার শূন্যপদ খালি পরে রয়েছে সেগুলিতে অবিলম্বে নিয়োগ করতে হবে এবং ৬) এখনকার দিনের নিত্যঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে সাধারণ মানুষকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো সেটা সরকারকে দায়িত্ব নিয়ে অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে।

এই সাংবাদিক সম্মেলনে দাবি করা হয় এ রাজ্যে এই মুহুত্তে পরাধীনতার রাজত্ব এবং ভয়ের রাজত্ব চলছে। বিশিষ্ট সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে এইদিন বলা হয় যে আমরা রাজ্যপালের কাছেও যাবো।
#অগ্নিপুত্র