Press "Enter" to skip to content

“পশ্চিমবঙ্গের হিন্দুত্বকে ধ্বংস করতে চাইছে মমতা”- এমন দাবি তুলে বুদ্ধিজীবী ও মমতার উপর ক্ষোপ উগরে দিলেন বিজেপি নেতা।

এবার বিজেপির জাতীয় নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায় উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরের ঘটনায় মুখ খুললেন। তিনি সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী কে কটাক্ষ করে বললেন যে, ব্যানার্জি বাংলার হিন্দুত্ববাদ কে ধ্বংস করতে চাইছেন। ইসলামপুরের দ্বারিভিট হাইস্কুলে বৃহস্পতিবার পড়ুয়াদের ও পুলিশের মধ্যে ঝামেলা বাধে সেই স্কুলের শিক্ষক নিয়োগকে কেন্দ্র করে। সেখানকার সাধারণ মানুষ পড়ুয়াদের পাশে গিয়ে দাঁড়ায় এবং তাদের কে সমর্থন করেন। ছাত্রছাত্রীরা মঙ্গলবার থেকে দাবি তোলে যে, আমাদের স্কুলে বাংলা শিক্ষক না থাকার সত্ত্বেও কেন উর্দু শিক্ষক নিয়োগ করা হচ্ছে। আমাদের বাংলা শিক্ষক চাই। পড়ুয়ারা তাদের দাবিতে অনড় থাকে। সেই অবস্থায় উর্দু শিক্ষক বৃহস্পতিবার স্কুলে যোগ দিতে এসেছিল। সেই সময় ছাত্রদের বিক্ষোভ চরম আকার ধারন করে। সেই বিক্ষোভ কে আটকানোর জন্য পুলিশ ছাত্রছাত্রীদের উপর নিদ্ধিধায় গুলি চালায়। আর সেই গুলি সোজা গিয়ে লাগে ২৭ বছর বয়সী স্কুলের প্রাপ্তন ছাত্র রাজেশ সরকারের গায়ে। তার মৃত্যু হয়। তারপর আরও একজন প্রান হারায়। ওই স্কুলের দশম শ্রেণীর ছাত্র তপন বর্মন সেই দিনের বিক্ষোভে পুলিশের গুলিতে যখম হয়। তারপর হাসপাতালে মৃত্যু হয় ১৬ বছরের তপনের।

আমাদের রাজ্যের রাজ্য রাজনীতি চরম উত্তাল হয়েছে এই দুই মৃত্যুকে ঘিরে। বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায় সমগ্র ঘটনায় রাজ্য সরকার কে কাঠ গোড়াতে তুলেছেন। তিনি বলেছেন যে, রাজ্য সরকার কোন দিক দিয়ে বিচার করে এই রকম একটা জ্ঞানহীন কাজ করতে পারলেন। সেই স্কুলে দরকার ছিল বাংলা শিক্ষকের। কারন সেখানকার প্রতিটি ছাত্রছাত্রী হল বাংলাভাষী। কিন্তু রাজ্য সরকার বাংলা শিক্ষক নিয়োগ না করে করলেন একজন উর্দু শিক্ষক। কিন্তু সেটার কোনো প্রয়োজনই ছিল না কারন সেই স্কুলে কোনো উর্দুভাষী পড়ুয়া নেই।

জয় বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন যে, অনেক দিন আগেই ছোটদের বইতে রামধনু হয়েছে রঙধনু। আকাশী রঙ এর নাম পরিবর্তন করে করা হয়েছে আসমানি। আর এবার বাংলাভাষী স্কুল গুলিতে উর্দু শিক্ষক নিয়োগ হচ্ছে যাতে বাঙালি ছাত্রছাত্রীদের উর্দু শেখানো যায়। অন্য দিকে তারা বাংলা পড়ার জন্য উপযুক্ত শিক্ষক পাচ্ছেন না। তিনি আরও বলেন যে, এই ভাবে রাজ্যে ইসলামিকরণের পথ প্রশস্ত করে বাংলার হিন্দুত্বকে ধ্বংস করার পথে হাঁটছেন মমতার সরকার।

এই দিন জয় বন্দ্যোপাধ্যায় মমতার সরকারের বিভিন্ন দিক যেমন : রাজ্যে রথযাত্রা বাতিল করে দেওয়া হয়েছে ঈদের জন্য রাজ্যে। মহরমের জন্য বেশ কয়েক বছর ধরে পিছিয়ে দেওয়া হচ্ছে দুর্গা পুজোর বিসর্জন। তিনি এইদিক গুলি তুলে ধরে বলেন যে, মমতা রাজ্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি নষ্ট করছেন। মমতা শুধুমাত্র ইসলামিক সম্প্রদায়ভুক্ত মানুষজন দের সাহায্য করে বিভেদ সৃস্টি করছে রাজ্যের মানুষের মধ্যে।

এই প্রসঙ্গ তুলে তিনি রাজ্যের বুদ্ধিজীবীদের আক্রমণ করতেও ছাড়েননি। তিনি বলেন যে, কথায় কথায় হিন্দুবাদের বিরোধিতা করে রাজ্যের যেসমস্ত বুদ্ধিজীবী(গরুখোর) মানুষ মিছিল করেন, মোমবাতি নিয়ে রাস্তায় বের হন তারা এখন কোথায়। নাকি শুধুমাত্র মুসলিম যুবক মরলেই তাদের রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করতে হয়। হিন্দুদের বেলায় তাদের খুঁজে পাওয়া যায় না। যেমন রাজেশের খুন হওয়াতে তাদের টিকি খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।
#অগ্নিপুত্র