Press "Enter" to skip to content

মেক ইন ইন্ডিয়া প্রকল্প অনুযায়ী আমেঠিতে চালু হতে চলেছে AK-47 এর ফ্যাক্টারি, ভোটের আগে চিন্তায় কপালে ভাঁজ কংগ্রেসের

কেন্দ্র সরকার Kalashnikov রাইফেল বানানোর জন্য সবুজ সঙ্কেত দিয়ে দিয়েছে। রাশিয়ার একটি কম্পানি আর অর্ডিন্যান্স ফ্যাক্টারি বোর্ড মিলে ৭.৪৭ লক্ষ Kalashnikov রাইফেল বানাবে। আর এর জন্য উত্তরপ্রদেশের আমেঠির পাশে প্লট তৈরি করা হচ্ছে। এটি রাইফেল সোভিয়েত জেনারেল মিখাইল Kalashnikov এর তরফ থেকে আবিস্কার করা প্রতিষ্ঠিত AK-47 এর লেটেস্ট ভার্সন।

Mikhail Kalashnikov

এই প্রজেক্টে কত খরচ হবে, আর কাজ কবে শুরু হবে সেটা নিয়ে কেন্দ্র সরকার পরে তথ্য জানাবে। গত বছরের অক্টোবর মাস থেকেই এই রাইফেল নিয়ে ভারত আর রাশিয়ার মধ্যে কথা হচ্ছিল। গত বছরের ডিসেম্বর মাসে সরকার সঙ্কেত দিয়েছিল যে ‘মেক ইন ইন্ডিয়া” প্রকল্প অনুযায়ী এই রাইফেলস এর নির্মাণ ভারতেই হবে। আর এই হাতিয়ার গুলো সেনা এবং পুলিশ অফিসারের হাতে তুলে দেওয়া হবে।

মিখাইল Kalashnikov নামেই এই রাইফেলের নাম রাখা হয়েছে। আর এটি বিশ্বের সবথেকে বেশি প্রচলিত এবং ব্যাপক রুপে ব্যাবহার করা হাতিয়ার। তুলনামূলক ভাবে এই রাইফেলের নির্মাণ অন্য বন্দুকের থেকে সস্তা। তাছাড়া এটি নির্ভরযোগ্য এবং মেরামত করা সহজ।

এটি মিখাইলের অটোম্যাটিক হাতিয়ার। আর তারজন্য এর নাম দেওয়া হয়েছে Avatomat Kalashnikova। আর তারপর থেকেই এই রাইফেলকে অটোম্যাটিক Kalashnikov বলা হয়। প্রথমে যখন এই রাইফেল তৈরি হয়েছিল, তখন এটিতে চরম সমস্যা দেখা দিয়েছিল। কিন্তু ১৯৪৭ সালে মিখাইল Avatomat Kalashnikova মডেলকে সম্পূর্ণ রুপ দিয়ে ফেলেন।

এটি উচ্চারন করা মুশকিল এর জন্য সংক্ষেপে এর নাম AK-47 রাখা হয়েছিল। আর তারপর থেকে এটি এই নামেই পরিচিত হয়। এই রাইফেলের সুধু AK-47 মডেলই নেই। এখন এই রাইফেলের প্রচুর মডেল পাওয়া যায়। তাঁদের মধ্যে AK-74, AK-103 এর মত রাইফেল গুলোও আছে।

AK-47 এমনি একটি হাতিয়ার, যার সাহায্যে জলের ভিতরে হামলা করার পরেও, গুলি সোজাসুজি যায়। গুলির গতি এত দ্রুত হয় যে, জলের ঘর্ষণ তাকে রুখতে পারেনা। এটি খুবই সিম্পল রাইফেল, আর খুব সহজেই এটির নির্মাণ করা যেতে পারে। আর এরজন্যই এই রাইফেল বিশ্বের একমাত্র রাইফেল যে, যার সবথেকে বেশি নকল করা হয়েছে।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *