Press "Enter" to skip to content

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের মন্তব্যের জেরে, কর্ণাটকের পর মধ্যপ্রদেশেও রাজনৈতিক অস্থিরতা

কর্ণাটকে কুমারস্বামী এবং কংগ্রেসের জোট সরকারের পতনের পর এবার মধ্যপ্রদেশে কমলনাথ সরকারের হৃদ কম্পন বেড়ে গেছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যেয় কর্ণাটকে কুমারস্বামীর সরকারের পতনের পর রাতের বেলায় মধ্যপ্রদেশ বিজেপির তরফ থেকে প্রথম প্রতিক্রিয়া আসে। মধ্যপ্রদেশ বিধানসভার নেতা বিপক্ষ গোপাল ভার্গভ বলেন, মধ্যপ্রদেশের সরকার খুব তাড়াতাড়ি তাঁদের পিণ্ডদান করতে চলেছে।

আরেকদিকে মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানও কমলনাথ সরকারকে নিয়ে বড় বয়ান দেন। শিবরাজ সিং বলেন, যদি মধ্যপ্রদেশে কিছু হয়, তাহলে আমাদের যেন দোষ না দেওয়া হয়। শিবরাজ সিং এর এই বয়ানের পর কমলনাথ সরকারের মন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা জিতু পাটওয়ারী বলেন, মধ্যপ্রদেশের সরকার হিলাতে সাত জনম লাগবে বিজেপির।

কর্ণাটকের সরকারের পতনের পর মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বিজেপির বরিষ্ঠ নেতা শিবিরাজ সিং চৌহানের মন্তব্যের পর রাজ্যে রাজনৈতিক অস্থিরতা বেড়েছে। শিবরাজ সিং চৌহান বলেন, ‘আমরা মধ্যপ্রদেশের সরকারে পতনের কারণ হবনা। কংগ্রেসের নেতারা নিজেই সরকারের পতনের কারণ হবে। কংগ্রেসের ভিতরে অনেক দ্বন্দ আর তাঁদের সমর্থন করছে বহুজন সমাজ পার্টি। যদি কিছু হয়ে যায়, তাহলে আমরা কিছু করতে পারব না।”

উল্লেখ্য, ২৩০ সদস্যের মধ্যপ্রদেশ বিধানসভায় কংগ্রেসের ১১৪ জন বিধায়ক, আর ভারতীয় জনতা পার্টির ১০৯ জন বিধায়ক আছেন। কংগ্রেসকে সরকার গঠনের জন্য বহুজন সমাজ পার্টির দুই, সমাজবাদী পার্টির এক আর চারজন নির্দলীয় বিধায়ক সমর্থন করেছে।