Press "Enter" to skip to content

দুর্গামণ্ডপে গুন্ডাগিরি করতে পৌঁছেছিল কানায়া কুমার! দূর্গাভক্তরা একত্রিত হয়ে গণপিটুনি দিলো বামপন্থী ছাত্র নেতাকে।

বিহারে শহুরে নকশাবাদকে চরমে নিয়ে যেতে চাই। সব জায়গায় নিজের গুন্ডা গ্যাং নিয়ে ঘুরে বেড়াতে শুরু করেছে। কিছুদিন আগেই পাটনার AIIMS হসপিটালে ১০০ গুন্ডা নিয়ে ঢুকে পড়েছিল এবং ডাক্তারদের মেরে ফেলার হুমকি পর্যন্ত দিয়েছিল। এই নিয়ে ের বিরুদ্ধে পাটনায় FIR দায়ের করা হয়েছে। কিন্তু কানুন একটু হলেও রাজনৈতিক ব্যাপারে কার্যবাহী এড়িয়ে যায়, এই কারণে রাজনৈতিক গুন্ডাদের মনোবল বেড়ে যায়। লোকসভা বেগুসরায় থেকে মহাজোটবন্ধনের প্রার্থী। বেগুসরায়ের ৩০% মুসলিম ভোটকে খুশি করে দিতে চাই।

এই কারণে কানায়া কুমার বেগুসরায়ে নিজের প্রভাবশালী ইমেজ তৈরী করার চেষ্টা করছে। দূর্গাপূজা চলছে এই সময় কানায় কুমার ৪০ গুন্ডাকে সাথে নিয়ে এক প্যান্ডেলে ঢুকে পড়েছিল। প্যান্ডেলে জোর করে ৮ টি গাড়িকে পার্ক করে দেয় কিন্তু লোকজন কানায়কে এটা করতে নিষেধ করে। কিন্তু মুসলিমদের কাছে নিজেকে হিন্দুদের উপর দাপুটে প্রমান করার জন্য কানায়া কুমার গুনদাগিরি শুরু করে দেয়।

শেষমেষ ভক্তদের ধর্য্যের সীমা ভেঙে যায় এবং কানায় কুমার সহ তার সাথীদের বেধড়ক মারধর করা হয়। ঘটনাটি বেগুসরায়ের ভগবানপুর থানার দাহিয়া গ্রামের। কানয়াইয়া কুমারের বাড়ি এখান থেকে খুব কাছেই বিহাট গ্রামে। কানয়াইয়া নিজেকে খুব গরিব বাড়ির বলে দাবি করে কিন্তু এলাকায় হিন্দুদের মনে ভয় ঢুকিয়ে ৩০% মুসলিমকে খুশি করতে দুর্গা প্যান্ডেলে তান্ডব করেছিল। নিজের ৪০ সমর্থকদের নিয়ে তান্ডব করতে গিয়েছিল কানায়া কুমার এবং সেখানে জোরজবস্তি গাড়ি পার্ক করতে শুরু করেছিল।

যারপর লোকেরা চারিদিকে ফোন করতে শুরু করে এবং ভক্তরা একজায়গায় জড়ো হয়ে গুন্ডাদের পিটুনি দেয়। তবে গুন্ডাদের সাথে সংঘর্ষে কিছু দুর্গাভক্ত হালকা আহত হন। তবে ভক্তরা কানয়াইয়া কুমার ও তার সাথীর ভালো হিসেব নেয়। গুন্ডাদের গাড়িগুলোকে ভাঙচুর করে দুর্গামাতার ভক্তরা। কানায়া কুমার ও তার সাথীদের মারার জন্য মিডিয়ার কাছে কানায়া নিজে ক্ষোপ প্রকাশ করেছে। কানায়া কুমার দাবি করেছে বজরং দলের লোকজন তাকে এবং তার সাথী গুন্ডাদের পিটিয়েছে।