Press "Enter" to skip to content

“আমি বুক ঠুকে বলবো-চুপ থাকবো না, ভারতীয় সেনা ধর্ষণ করে”:কানাইয়া কুমার, বামপন্থী নেতা।

বামপন্থী নেতা কানায়া কুমার আরো একবার নিজের মন্তব্যের জন্য বিতর্কে চলে এসেছেন। কিছুদিন আগেই কানায়া কুমার ইসলাম ধর্মে শক্তি রয়েছে এই ধরণের মন্তব্য করে বিতর্কে এসেছিলেন। এখন আবার বিতর্কিত মন্তব্য করে সমালোচনা মুখে পড়েছেন। তবে এবার কানায় কুমার কোনো ধৰ্ম নিয়ে নয়, বরং দেশের সেনাকে ধর্ষক বলার জন্য বিতর্কে এসে গেছেন। কানায় কুমার বিহারের বাগুসরাই আসন থেকে লোকসভা লড়ছেন। লালু প্রসাদ যাদবের পার্টি RJD ও রাহুল গান্ধীর পার্টি কংগ্রেস, কানায় কুমারকে সমর্থন দিয়েছেন। অর্থাৎ কানায়া কুমার কংগ্রেস, RJD ও বামপন্থীরা মিলিত পার্থী। এই পার্টিগুলির সংযুক্ত পার্থী কানায় কুমার বলেছেন, “আমরা মুখ বন্ধ করবো না, আমরা বলবো, আমি বুক ঠুকে বলবো ভারতীয় ধর্ষক। কানায় কুমার বলেছেন ভারতীয় কাশ্মীরি মহিলাদের ধর্ষণ করে।

ভারতীয় সেনা মানবাধিকারের উলঙ্ঘন করে।” বামপন্থী নেতা কানায় কুমার সরাসরি ভারতীয় সেনাকে ধর্ষক বলে অভিহিত করে দিয়েছে। কিছুদিন আগে কানায় কুমার হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম কবুল করাকে সমর্থণ দিয়েছিলেন। কানায় কুমার বলেছিলেন ইসলামে অনেক শক্তি রয়েছে, আল্লাহ শক্তিশালী। তাই ছুঁয়া ছুতের ধৰ্ম থেকে মানুষ ইসলাম ধর্মে আসে। কানায় কুমার বলেছেন, আমার বলার অধিকার কেউ ছিনিয়ে নিতে পারে না।

আসলে কানায় কুমারের মতো বামপন্থী নেতার ভারতীয় সেনার বিরুদ্ধে বলে বৈদেশিক শক্তিকে খুশি করে যাতে ফান্ডিং পাওয়া যায়। কানায় কুমার দেশদ্রোহী শক্তিগুলি খুশি করার জন্যই এমন মন্তব্য করেছে। কানায় কুমার ভারতীয় সেনার বিরুদ্ধে কোনো প্রমাণ দেখাতে পারবে না কিন্তু তা সত্ত্বেও নিজের অধিকার/বাক স্বাধীনতা এই সমস্থ কিছুর আড়ালে দেশের সেনাকে ধর্ষক বলে যাবে।

তবে শুধু দেশের সেনার বিরোধিতা করা নয়, এর আগে কানায় কুমার ওসামা বিন লাদেনের সমর্থনেও বক্তব্য রেখেছিল। কানায় কুমার ওসামা বিন লাদেনকে ক্লিন চিট দিয়ে আমেরিকাকে দোষারোপ করেছিল। তবে ভারতের মিডিয়ার কাছে এই সমস্থ নেতারা হিরো। মিডিয়া এই সমস্থ নেতাদের স্টুডিওতে বসিয়ে ইন্টারভিউ নেয়। আর ভারতের কংগ্রেস ও RJD এর মত দলগুলি এই ব্যাক্তিকে সমর্থন দিয়ে জিতিয়ে সাংসদে পাঠাতে চাই।