Press "Enter" to skip to content

কর্ণাটকে কি আবার ফুটবে পদ্ম? সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাল জোট সরকার! কংগ্রেসের মন্ত্রীরাও দিলেন ইস্তফা

কংগ্রেস আর জেডিএস এর ১৪ জন বিধায়কের পদত্যাগের পর কর্ণাটকের জোট সরকার চরম সঙ্কটের সন্মুখিন। এরকম সঙ্কট যখন জোট সরকার প্রথম বারের জন্য গঠন হয়েছিল, তখনও দেখা গেছিল। যদিও কংগ্রেস আর জেডিএস দুজনেই সরকার বাঁচানোর জন্য উঠেপড়ে লেগেছে। কিন্তু আপাতত তাঁদের রাস্তা সুগম নয়।

শনিবার কংগ্রেস আর জেডিএস এর ১৩ জন বিধায়ক পদত্যাগ করার পর সোমবার এক নির্দলীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের মন্ত্রী পদত্যাগ করেন। নির্দলীয় বিধায়ক ওনার ইস্তফা সরাসরি রাজ্যপালের কাছে পাঠিয়ে দেন। এরসাথে উনি এও বলেন যে, বিজেপিকে যদি সরকার গড়ার জন্য ডাক দেওয়া হয়, তাহলে তিনি বিজেপিকে সমর্থন করবেন। নির্দলীয় এক এবং জোট সরকারের ১৩ জন বিধায়কের ইস্তফা মঞ্জুর হলে, ২২৪ আসন বিশিষ্ট কর্ণাটক বিধানসভায় জোট সরকারের সদস্য সংখ্যা ১০৯ হয়ে যাবে।

বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণের জন্য ১১৩ জন বিধায়কের দরকার। আরেকদিকে কর্ণাটকের প্রধান বিরোধী দল বিজেপির কাছে ১০৫ জন বিধায়ক আছে। এছাড়াও নির্দলীয় বিধায়ক বিজেপিকে সমর্থন দিলে বিজেপির বিধায়কের সংখ্যা ১০৬ হয়ে যাবে। এরমধ্যে কংগ্রেস আর জেডিএস এর বিক্ষুব্ধ বিধায়কেরা যদি বিজেপি সমর্থন করেন। তাহলে কর্ণাটক বিধানসভার পরিসংখ্যানই পালটে যাবে।

আরেকদিকে সরকার বাঁচানোর জন্য কংগ্রেস এবং জেডিএস নতুন পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নামছে। প্রথমে তাঁরা বিক্ষুব্ধ বিধায়কদের মন্ত্রী পদের লালসা এবং তাঁদের এলেকায় বিশেষ প্যাকেজ দেওয়ার কথা জানায়। কিন্তু বিক্ষুব্ধ বিধায়কেরা তাতেও রাজি হননি। এরপর জোট সরকারের সমস্ত মন্ত্রীদের ইস্তফা দেওয়াতে চলেছে কংগেস এবং জেডিএস। তাঁরা সমস্ত মন্ত্রীদের ইস্তফা দিইয়ে, নতুন করে মন্ত্রীসভা গঠন করার পরিকল্পনা করছে। এমনকি জেডিএস থেকে জানানো হয়েছে যে, কংগ্রেসের নেতা তথা রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিধারামাইয়া-কে মুখ্যমন্ত্রীর জন্য সমর্থন করবে তাঁরা।

you're currently offline