Press "Enter" to skip to content

এই দেশে ঢুকে ভারত চালালো গুপ্ত অপারেশন! মোস্টওয়ান্টেড পাক ISI এজেন্টের খেলা শেষ করলো ভারত।

আতঙ্কবাদী কোনো দেশের যেকোনো প্রান্তে লুকিয়ে থাকে না কেন, ের সুরক্ষা বাহিনী ও সেনা কখনোই আতঙ্কবাদীর পিছন ছাড়ে না। কোনো সুরক্ষা এজেন্সির অপেরাশন ততক্ষণ শেষ হয় না যতক্ষণ পর্যন্ত সেই আতঙ্কবাদীকে মেরে না ফেলা হচ্ছে। এর মধ্যে একটা বড়ো খবর সামনে আসছে। ে একটা গুপ্ত অপেরাশন চালানো হয়েছিল যেখানে ি বাহিনী isi এর মোস্ট ওয়ান্টেড এজেন্টকে মেরে ফেলা হয়েছে। এইরকমই গোপন অপেরাশন চালানোর জন্য এনএস অজিত ডোভাল বিখ্যাত। কারণ উনি নিজে বহু বছর পাকিস্থানে ভারতের গুপচর হিসেবে কাটিয়েছেন। বাটলা হাউস আতঙ্ক কান্ড ও মুম্বাই বোমা কাণ্ডের মূল অপরাধী খুরশিদ আলমকে নেপালে ঢুকে শেষ করে দেওয়া হয়েছে। সূত্রের খবর অনুযায়ী মোদী সরকার গুপ্ত সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করিয়ে দেশের এই ভয়ানক শত্রুকে শেষ করে দিয়েছে। এই আতঙ্কিকে মারার জন্য ভারত গোপন অপেরাশন চালানো হয়েছিল।

উল্লেখ্য, isi এর এক বড়ো এজেন্ট যে নেপালে লুকিয়ে বসে ছিল। দিল্লি স্থিত বাটলা হাউসে আতঙ্কবাদী লুকিয়ে থাকার পর যে তদন্ত করা হয়েছিল। তখন ইন্ডিয়ান মুজাহিদ্দীনের আতঙ্কবাদীর পালিয়েছিল সেই সময় নেপালে সবার জন্য পাসপোর্ট তৈর করেছিল। লজিস্টিক সাপোর্ট থেকে শুরু করে থাকার সমস্ত বন্দোবস্ত নেপালের লুকিয়ে থাকা এই করে ছিল। কংগ্রেস আমলে হওয়া বাটলা কান্ড, দিল্লির সিরিয়াল ব্লাস্ট সহ নানা আতঙ্কি কার্যকান্ডে যুক্ত থাকা ইন্ডিয়ান মুজাহিদ্দীন ও লস্করে তাই টাইবা সহিত নানা সংগঠনের সাথে যুক্ত থাকতো এই

ভারতীয় এজেন্সি বহু বছর ধরে এই আতঙ্কিকে খোঁজার জন্য লেগে পড়েছিল। মুম্বাই বিস্ফোরনের অভিযুক্ত খুরশিদ আলমকে বৃহস্পতিবারদিন রাতে সানসারি জেলার হরিনগর এলাকায় গুলি চালিয়ে শেষ করে দেওয়া হয়েছে। হরিনগর এলাকার ভূতাহ বাজারে ২ বাইকে আসা ৪ জন অজ্ঞাত পরিচয়ের ব্যাক্তি খুরশিদ আলমের উপর গুলির বৃষ্টি করে দেয়।

খুরশিদ আলমের হত্যার পর বাইক আরোহীরা ভারতের সীমান্তে প্রবেশ করে যায়। জানিয়ে দি বাইকের নাম্বার ভারতের ছিল এবং বলা হচ্ছে মোদী সরকারের এদেশে এই গুপ্ত অপেরাশন চালানো হয়েছিল। জানিয়ে দি, খুরশিদ আলম নেপালে স্কুল প্রিন্সিপ্যাল ছিল এবং ২০০৮ সালে বাটলা এনকাউন্টারে গেপ্তার এক আতঙ্কি শাহাজাদা পাপ্পুর কাছে থেকে এই খুরশিদ আলমের নাম জানা গেছিল।