Press "Enter" to skip to content

বেরিয়ে এলো বামপন্থী সরকারের ভন্ডামী! মসজিদে প্রবেশ করতে চাওয়া ৩ মহিলাকে গ্রেপ্তার করলো করল পুলিশ।

পূজ্য সবরীমালা মন্দিরের পবিত্রতা বজায় রাখার জন্য সংঘর্ষ করা হিন্দুদের উপর অত্যাচার  চালানো বামপন্থী সরকারের আরো এক ভণ্ডামি সামনে চলে এসেছে। কেরলের বামপন্থী সরকার সবরিমালা মন্দিরে ২ জন মহিলা প্রবেশ করিয়ে মন্দিরের ৮০০ বছরের পুরনো নিয়ম ভেঙে দিয়েছে। অন্যদিকে মসজিদে প্রবেশ করার চেষ্টারত ৩ জন মহিলাকে গ্রেপ্তার করেছে করল পুলিশ। অর্থাৎ একদিকে হিন্দুদের আস্থায় আঘাত আনার কোনো সুযোগ ছাড়ছে না কেরালার পুলিশ অন্যদিকে মসজিদ প্রবেশে চেষ্টারত মহিলাদের গ্রেপ্তার করে দুই ধরনের আলাদা আলাদা ভন্ডামির নীতি প্রকাশ করছে কেরালার সরকার। সবরিমালা মন্দিরে পুলিশ আয়াপ্পা ভক্তদের দমন করে ক্রিষ্টান ও মুসলিম মহিলাদের প্রবেশ করাতে ব্যাস্ত হয়েছে অন্যদিকে ওই মন্দিরের পাশেই থাকা এক মসজিদে মহিলা প্রবেশে সাহায্য করা তো দূর উল্টে গ্রেপ্তার করেছে মহিলাদের।

ইসলামের আস্থা অনুযায়ী মসজিদে মুসলিম মহিলাদের প্রবেশ নিষিদ্ধ এবং হিন্দু আস্থা অনুযায়ী সবরিমাল মন্দিরে মহিলা প্রবেশ নিষিদ্ধ। কিন্তু কেরালার সরকার দুই সম্প্রদায়ের ক্ষেত্রে দুই নীতি প্রয়োগ করছে। একদিকে হিন্দু আস্থা ভেঙে মহিলাদের মন্দিরে ঢুকিয়ে দিচ্ছে অন্যদিকে ইসলামের আস্থার রক্ষার জন্য পুলিশ মসজিদে ঢুকতে চাওয়া মহিলাদের গ্রেপ্তার করেছে।

জানিয়ে দি, হিন্দু বহুল ভারতের বিভিন্ন মন্দিরের বিভিন্ন নিয়ম রয়েছে। এমন অনেক মন্দির রয়েছে যেখানে পুরুষ প্রবেশ নিষিদ্ধ আবার অনেক মন্দির রয়েছে যেখানে মহিলা প্রবেশ নিষিদ্ধ। কোনো গার্লস স্কুলকে যেভাবে আপনি পুরুষ বিদ্বেষী বলতে পারবেন না সেই একইভাবে মন্দিরের এই নিয়ম কোনো লিঙ্গ বৈষম্য নয়।

বলা হয় সবরিমাল মন্দিরের পূজ্য দেবতা এক বিশেষ ধরনের ব্রহ্মচারী, যিনি মহিলাদের দর্শন করতে পারেন না। এই বিষয়ের উপর এক বড় কাহিনী হিদু গ্রন্থে রয়েছে। এই আস্থার উপর ভিত্তি করেই কোনো আয়াপ্পা ভক্ত(পুরুষ হোক বা মহিলা) মন্দিরের নিয়মের উপর আচঁ আসতে দিতে চান না। কিন্তু বামপন্থী সরকার  ক্ষমতা প্রয়াগ করে কেরালার ক্রিষ্টান ও মুসলিম তোষণের জন্য হিন্দুদের উপর অত্যাচার করতে শুরু করে দিয়েছে। তবে দেশের দালাল মিডিয়া এ নিয়ে এখন অবধি নিশ্চুপ হয়ে বসে রয়েছে।

Be First to Comment

Leave a Reply