Press "Enter" to skip to content

কুচবিহারে অগণিত জনতার ভিড় দেখে নরেন্দ্র মোদী বললেন, ‘এটা দিদির বিনাশের জলজ্যান্ত প্রমাণ”

প্রধানমন্ত্রী আজ তিন রাজ্যের সফরে আছেন। ের কুচবিহার এর পর ত্রিপুরার উদয়পুর এবং মনিপুরের ইম্ফলে উনি সভা করবেন। ৮০ সিটের রাজ্য উত্তরপ্রদেশের পর এখন পশ্চিমবঙ্গকে পাখির চোখ করে রেখেছে। বিজেপির এখন প্রধান উদ্দেশ্য হল এরাজ্যে বেশি করে আসন দখল করা। আর এই লক্ষ্য নিয়ে প্রধানমন্ত্রী , বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ এবং রাজ্য বিজেপির নেতৃত্ব মিশন কমল মুডে আছে।

কুচবিহার সভা থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যা যা বললেন।

-আপনারা মোদী-মোদী করছেন, আর সেটা শুনে আরেকজনের ঘুম উড়ে গেছে।

– কুচবিহারে অগণিত মানুষের ভিড় দেখে নরেন্দ্র মোদী বললেন, ‘এই ভিড় প্রমাণ করে দিচ্ছে যে দিদির বিনাশ খুব শীঘ্রই হবে।”

  • উনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের উপর সন্দেহ করে দিদি প্রমাণ করছেন যে, তিনি ভয় পেয়ে আছেন।
  • উনি বলেন, গোটা দেশে ফোনে কথা বলা একদম ফ্রি হয়ে যাবে, আর ইন্টারনেট পরিষেবা সবথেকে সস্তা হবে। এটা অসম্ভব লাগতে পারে। কিন্তু এই অসম্ভব এখন সম্ভব হতে চলেছে।

গরীবের বাড়িতে গ্যাস দিয়ে রান্না করা আগে অসম্ভব ছিল। কিন্তু এখন সেটা সম্ভব।

কেন্দ্র সরকার কুচবিহারের উন্নয়নের জন্য অনেক প্রকল্পকে মঞ্জুরি দিয়েছে।

অসম্ভবকে সম্ভব কে বানিয়েছে? না আমি বানাই নি। ওটা আপনারা বানিয়েছেন। আপনার একটা ভোট অসম্ভবকে সম্ভব করেছে।

২০১৪ এর আগে দেশে প্রায় দিনই জঙ্গিরা হামলা চালাত। তখনকার সরকারও জানত যে জঙ্গিরা কথা থেকে আসছে।

পাকিস্তান রোজই হুমকি দিত। পাকিস্তানের ওই হুমকিতে প্রাক্তন কেন্দ্র সরকার ভয় পেয়ে যেত।

কিন্তু যেদিন থেকে আপনারা এই চৌকিদারকে দিল্লীতে বসিয়েছেন। আমাদের সেনা জঙ্গিদের তাঁদের ঘরে ঢুকে মারছে।

 

আপনারা চৌকিদারের কাজে অসন্তুষ্ট? আপনারা কি চান আমি আরও কাজ করি?

যেই পশ্চিমবঙ্গের মা আর বোনেরা আমার পাশে দাঁড়িয়েছে। যেই রাজ্যের যুবরা দেশের পাশে দাঁড়িয়েছে। সেখান থেকে মোদীকে কেউ হারাতে পারবেনা।

10 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.