Press "Enter" to skip to content

ভাইরাল ভিডিও: পড়া মুখস্ত না করায় বাচ্চাকে উল্টো ঝুলিয়ে মারধর করলো মাদ্রাসার শিক্ষক!

রাওয়ালপিণ্ডের এক মাদ্রাসার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে পড়েছে। সেখানে এক ছাত্রকে মাদরাসার শিক্ষক উল্টো দিকে ঝুলিয়ে মারধর করেছে। ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর শিক্ষকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পাকিস্তানের কাউন্টার টেররিজম ডিপার্টমেন্ট এই ভিডিও ভাইরাল হওয়ার কিছু ঘন্টার মধ্যেই মাদ্রাসায় লোকেশন খোঁজ করে শিক্ষক নূর মহম্মদকে গ্রেফতার করেছে। যে নাবালক বাচ্চাটির উপর এই অত্যাচার করা হয়েছে তার মা বাবাকেও থানায় ডাকা হয়েছে কিছু গুরুত্বপূর্ণ জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য।

ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর পাকিস্তানে মাদ্রাসাগুলিতে কি হয় তা সকলের সামনে স্পষ্ট হয়ে গেছে। ছাত্ৰদের সাথে কতটা কট্টরতার সাথে আচরণ করা হয় তা ভিডিও থেকেই স্পষ্ট। প্রারম্ভিক তদন্তে জানা গেছে এই মাদ্রাসার সম্পর্ক এমন ব্যাক্তির সাথে রয়েছে যারা আতঙ্কবাদের সাথে যুক্ত। জানা গেছে ঘটনার পর ছাত্রের মা বাবার সাথে মাদ্রাসা পক্ষের মীমাংসা হয়ে গেছে। এই কারণে মাদ্রাসার উপর কোনো মামলা দায়ের করা হয়নি। পাকিস্তানে মাদ্রসাগুলিতে তালিম দেওয়া নামে ছাত্রদের মনে হিংসা ঢুকিয়ে দেওয়া হয়।

শুধু এই নয় বাচ্চাদের মনে আতঙ্কবাদের প্রতি বিশ্বাস ঢুকিয়ে দেওয়া হয় একই সাথে প্রচুর অত্যাচারও করা হয়। তেহেরিক-এ-ইনসাফ ওর নেতৃত্বধীন সরকার পাকিস্তানের ৩০ হাজার মাদ্রাসার বড়ো পরিবর্তন করার ঘোষণা করেছিল। মাদ্রসার সিলেবাসেও পরিবর্তন করার কথা বলা হয়েছিল। ইসলামের আধুনিকরণ এর সমর্থক ও ইসলামিক উগ্রবাদের বিরোধ করা ইমাম তৌহিদী ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোষ্ট করেছেন। ইমাম তৌহিদী লিখেছেন, আমাদেরকে মাদ্রাসায় আঙুলের মধ্যে পেন্সিল ফাঁসিয়ে সাজা দেওয়া হতো আর এখন কোরানের আয়াত মুখস্থ না করলে উল্টো ঝুলিয়ে মারা হচ্ছে। এখন মাদ্রাসায় এমন ঘটনা সাধারণ ও নিত্য হয়ে উঠেছে।